Left Front

ওয়েবডেস্ক: এক দিকে যখন পশ্চিমবঙ্গের ৪২টার মধ্যে ৪১টা আসনেই বামেদের জামানত জব্দ, ঠিক তখনই অন্য একটি রাজ্যে প্রভাব বিস্তার করল তারা।

পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি চিরাচরিত ভাবে কেরল এবং ত্রিপুরাই ছিল বামেদের ভরসার কেন্দ্রবিন্দু। কিন্তু তিন রাজ্যের এ বার বামেরা ধরাশায়ী। কেরলে তো পাঁচ বছর অন্তর অন্তর মানুষের মত বদলায়। তাই এ বার যে সে রাজ্যে বামেদের উল্লেখযোগ্য কিছু হত না, সেটা বাম নেতৃত্বও আন্দাজ করেছিল। তবে এই তিন রাজ্যের বাইরেও একটি রাজ্যে এ বার ভালো প্রভাব ফেলল বামেরা।

তামিলনাড়ুর চারটে আসন জিতেছে বামফ্রন্ট। এর মধ্যে দু’টি আসন জিতেছে সিপিএম, বাকি দু’টো সিপিআই। সিপিএমের দখলে গিয়েছে তামিলনাড়ুর দ্বিতীয় এবং তৃতীয় বৃহত্তম শহর, যথাক্রমে কোয়েম্বত্তুর এবং মাদুরাই। কোয়েম্বত্তুরে নিকটতম বিজেপি প্রার্থীকে ১,৭৯,১৪৩ ভোটে হারিয়েছেন সিপিএমের নটরাজন পিআর। অন্য দিকে মাদুরাইয়ে এআইএডিএমকে প্রার্থীকে প্রায় ১ লক্ষ ৪০ হাজার ভোটে হারিয়েছেন সিপিএমের বেঙ্কটেশন এস। পাশাপাশি সিপিআই জিতেছে যথাক্রমে তিরুপুর এবং নাগাপত্তিনম থেকে। নাগাপত্তিনমে সিপিআই প্রার্থী সেলভারাজ আবার পেয়েছেন ৫২ শতাংশ ভোট।

আরও পড়ুন হারলেন হেভিওয়েট, দেশ জুড়ে গেরুয়া ঝড়ের মধ্যেও ধর্মীয় শহর অধরাই থাকল বিজেপির

উল্লেখ্য, তামিলনাড়ুতে এ বার জোটের লড়াই ছিল। এক জোটে ছিল এআইএডিএমকে, বিজেপি-সহ আরও কিছু আঞ্চলিক দল। বিরোধী জোটে ছিল ডিএমকে, কংগ্রেস, বামফ্রন্ট এবং আরও কিছু দল। এই জোটের মধ্যে থেকে এই চারটে আসনেই প্রার্থী দিয়েছিল বামেরা। লোকসভা নির্বাচনে তামিলনাড়ু থেকে একশো শতাংশ ফলাফল যে বিধ্বস্ত বাম শিবিরকে কিছুটা স্বস্তি দেবে তা বলাই বাহুল্য।

উল্লেখ্য, এ বার কেরল অবস্থা খারাপ বামেদের। কংগ্রেস জোটের সামনে একমাত্র আলাপুজা আসনটাই ধরে রাখতে পেড়েছে তারা। ফলে তামিলনাড়ুর সুবাদেই সপ্তদশ লোকসভায় পাঁচ জন সাংসদ পাঠাচ্ছে বামেরা।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here