Modi Mamata

ওয়েবডেস্ক: লোকসভা এবং বিধানসভা ভোট পৃথক ভাবে না করে একই সঙ্গে আয়োজনের খসড়া রিপোর্ট জমা করল কেন্দ্রীয় আইন কমিশন। এই খসড়া প্রতিবেদনকে ঘিরেই নতুন করে সংঘাত শুরু হতে চলেছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকাগুলির। সংবিধানের ৮৩ (২) এবং ১৭২ (১) অনুচ্ছেদে লোকসভা এবং বিধানসভার মেয়াদ সংক্রান্ত পরিবর্তনের নিরিখে তৈরি করা খসড়া রিপোর্ট নিয়েই শুরু হতে চলেছে এই সংঘাত।

বেশ কয়েক মাস ধরেই শোনা যাচ্ছিল, নির্বাচনের ব্যয় হ্রাস-সহ একাধিক কারণকে সামনে রেখে আইন কমিশন লোকসভা ও বিধানসভা ভোট এক সঙ্গে করানোর প্রস্তাব দিতে পারে। কিন্তু এ বার সেই প্রস্তাব খসড়া রিপোর্ট আকারে জমা পড়ায় সংঘাত অনিবার্য হয়ে উঠল।

তবে এই খসড়া প্রতিবেদন যে খুব সহজে আইনে রূপান্তর করা সম্ভব নয় তা বেশ ভালো করেই জানেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তাই সংসদে পেশ করার আগে কমিশন চাইছে এই প্রস্তাবটিকে নিয়ে দেশের বিভিন্ন মহলের মত জেনে নেওয়ার কাজ সারতে। বিভিন্ন মহলে যদি এর গ্রহণযোগ্যতার প্রসার ঘটানো সম্ভব হয়, তা হলে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিকে বাগে নিয়ে আসা কিছুটা হলেও সহজ হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

কিন্তু শুধু মাত্র কেন্দ্রের বিজেপি বিরোধী রাজ্য সরকারগুলিই নয়, বেশ কয়েকটি বিজেপি শাসিত রাজ্য সরকারও এ বিষয়ে বেসরকারি ভাবে দ্বিমত ব্যক্ত করেছে। তৃণমূল কংগ্রেস, টিডিপি বা আপের মতো রাজ্য সরকারে ক্ষমতাশীল রাজনৈতিক দলগুলি তো এ বিষয়ে আগেই বিরোধিতার কথা জানিয়ে রেখেছে। কিন্তু সংখ্যা গরিষ্ঠতার নিরিখে সংসদে এই আইন পাশ করানো গেলেও দেশের প্রতিটি বিধানসভাতেও তা পাশ করালে তবেই সংবিধান সংস্করণ সম্ভব। ফলে মোদী সরকারের এই নির্বাচনী সংস্কার আদৌ কতটা সফল হতে চলেছে, তা স্পষ্ট হবে কয়েক মাসের মধ্যেই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here