ওয়েবডেস্ক: একদিকে রয়েছে পাকিস্তান, যাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর সংঘর্ষ লেগেই রয়েছে। অন্যদিকে রয়েছে চিন। যাদের সঙ্গে সাম্প্রতিক কালে দ্বৈরথ চরম আকার ধারণ করেছে। চারদিকে এমন হাবভাব যেন যে কোনো মুহূর্তে যুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে।

এই অবস্থায় আধুনিকীকরণের মধ্যে দিয়ে নিজেদের সামরিক শক্তিকে আরও শক্তিশালী করছে ভারত। নতুন প্রযুক্তির পাশাপাশি নতুন অস্ত্র, যুদ্ধবিমান, যুদ্ধজাহাজ ইত্যাদি এসেছে ভারতের সামরিক ‘পরিবার’-এ।

মূলত চিনকে টার্গেট করেই সামরিক ব্যবস্থায় এরকম আধুনিকীকরণ করেছে ভারত। এই মুহূর্তে ভারতের সামরিক নীতি হল ‘নো ফার্স্ট স্ট্রাইক’, অর্থাৎ ভারত কখনই প্রথম আঘাত হানবে না। কিন্তু নিজেদের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র এমন ভাবে তৈরি করেছে ভারত, যাতে পুরো চিনই সেই ক্ষেপণাস্ত্রের পরিসরে চলে আসে।

আসুন দেখে নিই বর্তমানে ভারতের সামরিক শক্তি কোন পর্যায়ে রয়েছে।

ভারতের সামরিক শক্তিকে মূলত তিনটে ভাগে ভাগ করা যায়। বিমানবাহিনী, নৌবাহিনী, স্থলবাহিনী। এই তিনটে বিভাগে এখন মোট ৪২,০৭,২৫০জন কাজ করেন। এই তিনটে বিভাগে ভারতের শক্তি কী রকম দেখে নেওয়া যাক।

বিমানবাহিনীর শক্তি

যুদ্ধের সময় বিশাল ভূমিকা পালন করে বিমানবাহিনী। সেই সঙ্গে কোনো কিছু পরিদর্শন, নজরদারি, দুর্যোগে ত্রাণকার্যে প্রয়োজন পড়ে এই বাহিনীর। বিমানবাহিনীর এই মুহূর্তে যুদ্ধ, আক্রমণ এবং পরিদর্শনের জন্য আলাদা আলাদা বিমান রয়েছে। মোট বিমান সংখ্যা ২১০২। এর মধ্যে যুদ্ধবিমান ৬৭৬টি, আক্রমণের জন্য বিমান ৮০৯টি, ট্রেনার বিমান রয়েছে ৩২৩টি। এ ছাড়াও রয়েছে বোমারু বিমান, ট্রান্সপোর্টার ৮৫৭টি। এছাড়াও ৬৬৬টি হেলিকপ্টার রয়েছে ভারতের।

নৌবাহিনীর শক্তি

বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম নৌবাহিনী রয়েছে ভারতের। যুদ্ধকৌশল সংক্রান্ত ডুবোজাহাজ রয়েছে। রয়েছে পরমাণু শক্তিধারী ডুবোজাহাজ, যুদ্ধবিমান বাহক জাহাজ, ফ্রিগেট, যুদ্ধজাহাজ, করভেট ইত্যাদি। ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের সময়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছিল নৌবাহিনী। এই মুহূর্তে ভারতের জলসীমা পাহাড়া দেওয়ার দায়িত্ব তাঁদের ওপর। ভারতের কাছে এই মুহূর্তে ২৯৫টি জাহাজ রয়েছে। এর মধ্যে তিনটে বিমানবাহক জাহাজ। রয়েছে ১৪টি ফ্রিগেট, ১১টি ডেস্ট্রোয়ার, ২৩টি করভেট, ১৫টি ডুবজাহাজ, ১৩৯টি পেট্রোল ক্রাফট এবং ৬টি মাইন ওয়ারফেয়ার ভেসেল।

স্থলবাহিনীর শক্তি

ভারতের সামরিক শক্তির শিরদাঁড়া এই স্থলবাহিনী। শক্তি এবং জওয়ানের সংখ্যার বিচারে এই মুহূর্তে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম স্থলসেনা রয়েছে ভারতের। প্রথম এবং দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে যথাক্রমে যুক্তরাষ্ট্র এবং চিন। স্থলসেনায় মোট জওয়ানের সংখ্যা ১২,০০,২৫৫। ভারতের কাছে ৪৪২৬টি কমব্যাট ট্যাঙ্ক, ৬৭০৬টি আর্মোর্ড ফাইটিং ভেহিকল, ২৯০টি সেলফ প্রোপেল্ড আর্টিলারি, ৭৪১৪টি টাওড আর্টিলারি এবং ২৯টি রকেট প্রজেক্টর রয়েছে।

ভারতের পরমাণবিক শক্তি

পরমাণবিক শক্তির বিচারে সারা বিশ্বে ভারতের স্থান সপ্তম। এই মুহূর্তে মোট ১৩০টি পরমাণবিক অস্ত্র রয়েছে ভারতের। সর্বনিম্ন দেড়শো কিলোমিটার একটি ক্ষেপণাস্ত্র যাওয়ার ক্ষমতা রাখে। সফল ভাবে পরীক্ষা করা হয়েছে ‘অগ্নি ৫’-কে। এখনও পর্যন্ত এটি ভারতের পরীক্ষিত সর্বোচ্চ দূরত্ব অতিক্রম করা ক্ষেপণাস্ত্র। (৫০০০ থেকে ৮০০০ কিমি)। এছাড়াও সর্বোচ্চ ১৬০০০ কিলোমিটার অতিক্রম করার ক্ষেপণাস্ত্রও তৈরি করছে ভারত।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন