ওয়েবডেস্ক: নিম্নলিখিত দু’টি পন্থা দেখে নিন।

১) মাত্র কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টি, আর তাতেই গৃহস্থবাড়ির ট্যাঙ্কে জমা হচ্ছে ২২৫ লিটার জল।

২) একটা ছোট্ট জিনিস, জলের কোলে লাগিয়ে দিন। আপনি দেখবেন কল থেকে জল বেরোবে ভালোই, কিন্তু আদতে পরিমাণে তা অনেক কম।

এই দু’টি পন্থাই দেখাচ্ছে চেন্নাই। তীব্র জলসংকটে অতিষ্ঠ চেন্নাই জল সংরক্ষণের জন্য নিত্যনতুন পন্থা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে। এর মধ্যে এই দু’টো পন্থা যথেষ্ট সাড়া ফেলেছে। প্রথম পন্থাটি ব্যক্তিগত উদ্যোগে একজন নিজের বাড়িতে করছেন। আর দ্বিতীয় পন্থার জন্য বাজারে একটি বিশেষ জিনিস নিয়ে এসেছে ‘আর্থ ফোকাস’ নামক একটি সংস্থা।

প্রথম পন্থাটি চালু করেছেন দয়ানন্দ কৃষ্ণন নামক বছর ৪৫-এর এক ব্যক্তি। বাড়িতে তৈরি বিশেষ ধরনের পাইপ এবং কলের সাহায্যে মাত্র কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টি থেকেই ২২৫ লিটার জল সংরক্ষণ করছেন তিনি।

কৃষ্ণন বলেন, “গত সপ্তাহে যখন আকাশ দেখে বুঝলাম ঝেঁপে বৃষ্টি আসছে, এই মুহূর্ত অপেক্ষা না করে ছাদ থেকে কয়েকটা পাইপ আমাদের জলের ট্যাঙ্কের সঙ্গে সংযোগ করে দিলাম। যেমন বৃষ্টি হয়েছে, ঠিক তেমন জল এসে জমা হয়েছে ট্যাঙ্কে।” এই গোটা ব্যাপারটি করতে, অর্থাৎ এই পাইপগুলি কিনতে এবং কয়েকটা ফিল্টার কিনতে তাঁর মোট খরচ হয়েছে মাত্র ২৫০ টাকা।

উল্লেখ্য, কৃষ্ণনের বাড়িতে আগে থেকেই ‘রেনওয়াটার হার্ভেস্টিং’-এর ব্যাপার ছিল। কিন্তু গত কয়েক বছরে তা অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে। যার ফলে জলের গাড়ির ওপরে ভরসা করতে হয়েছে তাঁর পরিবারকে। এখনও পর্যন্ত মোট ৬ হাজার লিটার জল কিনতে খরচ হয়েছে ১২০০ টাকা। এই সংকটের সময়ে বৃষ্টিতে হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছে তাঁর পরিবার।

ব্যক্তিগত উদ্যোগে বৃষ্টির জলকে কাজে লাগানোর রাস্তা দেখিয়েছেন কৃষ্ণন। কিন্তু সামগ্রিক ভাবে কী ভাবে জলের অপচয় কমানো যায় চেন্নাইবাসীকে সেই পন্থা দেখাচ্ছে ‘আর্থ ফোকাস’ নামক এক সংস্থা। এমন একটি জিনিস তারা বাজারে নিয়ে এসেছে, যেটা কলে লাগিয়ে দিলে জলের খরচা অন্তত ৯৫ শতাংশ কমে যাবে বলে দাবি।

আরও পড়ুন কী কী থাকতে পারে নির্মলা সীতারমনের প্রথম বাজেটে

সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা অরুণ সুব্রহ্মণ্যম বলেন, “এই জিনিসটি কলে লাগিয়ে দিলে কুয়াশাসদৃশ একটা ব্যাপার কল থেকে বেরোয়। সেটা দেখে আপনার মনে হবে জল বেরোচ্ছে, কিন্তু আদতে জল কার্যত বেরোচ্ছেই না। তাতেই সব কাজ হয়ে যাচ্ছে।”

তিনি আরও বলেন, “আমাদের দু’ রকম জিনিস আছে, ‘কোয়া মিস্ট’ আর ‘ইকো মিস্ট।’ বাড়ি এবং রান্নাঘরের জন্য কোয়া মিস্ট উপকারী এবং বাণিজ্যিক সংস্থার জন্য ‘ইকো মিস্ট’ কার্যকারী।”

নীচের ভিডিওটা দেখুন, কী ভাবে এই বস্তুটি কাজ করে।

সব মিলিয়ে জলকষ্টে ভোগা চেন্নাই পথ দেখাচ্ছে কী ভাবে জলের অপচয় বন্ধ করা যায়। আমরা কি এটা অনুসরণ করতে পারি না?

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন