west bengal lightning

ওয়েবডেস্ক: এ রকম একটা আশঙ্কা ছিলই। অবশেষে ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ট্রপিক্যাল মেট্রোলজি (আইআইটিএম) জানিয়ে দিল, প্রাকৃতিক দুর্যোগ হিসেবে বন্যা বা ঘূর্ণিঝড়ের থেকেও বেশি ভয়ংকর বজ্রপাত। বন্যা বা ঘূর্ণিঝড় যত মানুষের প্রাণ নেয় তার থেকে অনেক বেশি প্রাণ নেয় বজ্রপাত।

জাতীয় ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর (এনসিআরবি) একটি তথ্যে দেখা যাচ্ছে, ১৯৯৬ থেকে ২০০৫, এই দশকে যত মানুষ বজ্রপাতে প্রাণ হারিয়েছিলেন, তার পরের দশকে সংখ্যাটি বেড়ে গিয়েছে ৫০ শতাংশ। আইআইটিএমের বিজ্ঞানীরা মনে করছে, যদিও সংখ্যাটা বাড়ার অন্যতম কারণ ঘটনাগুলির ঠিকঠাক খবর পাওয়া, তবুও বজ্রপাতের সংখ্যাও আগে থেকে অনেকটা বেড়েছে।

১৯৯০ থেকে ২০১৩-এর উপগ্রহ-চিত্র বিশ্লেষণ করেছেন আইআইটিএমের আবহাওয়াবিদ ভি গোপালকৃষ্ণন। দেখা গিয়েছে, প্রত্যেক বছরে অন্তত ২-৩ শতাংশ করছে বাড়ছে বজ্রপাত। তবে বেশি মাত্রার দূষণ এবং গাছপালা কম থাকায় শহরগুলির ওপরে বজ্রপাতের আশঙ্কা এখন আগের থেকে অনেক বেশি।

বজ্রপাতের সঙ্গে জলবায়ু পরিবর্তনের সরাসরি সম্পর্ক থাকার কোনো প্রমাণ এখনও পাওয়া যায়নি। তবে বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, মাটি এখন আগের থেকে অনেক বেশি গরম হচ্ছে। ফলে বজ্রঝড়ের অনুকূল বজ্রগর্ভ মেঘ আগের থেকে বেশি তৈরি হচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। এর ফলে বজ্রপাত বাড়ছে বলে মনে করছেন এক বিজ্ঞানী।

আরও পড়ুন বজ্রপাতের সময় কী ভাবে রক্ষা করবেন নিজেকে? নজর রাখুন এই তথ্যগুলিতে

তবে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, বজ্রপাতের ওপরে নজরদারির ব্যবস্থা না থাকায় ভারতে এটি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সচেতনতার অভাবও প্রাণ নিচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। বজ্রপাতে নজরদারি চালানো এক মার্কিন সংগঠনের বিজ্ঞানী বলেন, “সব থেকে বড়ো যে সমস্যা হল, সেটা হল ভারতে প্রচুর লোক খোলা আকাশের নীচে কাজ করে। বজ্রপাত বা ঝড়বৃষ্টির সময় তাঁদের পক্ষে আশ্রয় পাওয়া খুবই কঠিন। ফলে বজ্রপাতে মৃত্যুর সংখ্যা বেশি।”

ইদানীং কালে বজ্রপাত একটা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে। গত কয়েক মাস ধরে দেখা যাচ্ছে, কলকাতা বা সমগ্র রাজ্যে বৃষ্টি হলেই বজ্রপাত ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। গত কয়েক মাসে রাজ্যে বজ্রপাতে যত জন প্রাণ হারিয়েছেন সেটা আগে কখনও ঘটেনি বলেই মনে করা হচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে বিজ্ঞানীদের একমাত্র দাবি, ভারতে বজ্রপাতের ওপরে সঠিক নজরদারি চালানোর ব্যবস্থা থাকলেই কমবে প্রাণহানি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here