rahul gandhi and narendra modi

নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঋণগ্রস্ত আইএল অ্যান্ড এফএস (ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিজিং অ্যান্ড ফিনান্স সার্ভিসেস)-এর ত্রাতা হয়ে উঠতে চাইছেন, অভিযোগ কংগ্রেস সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল গান্ধীর। তিনি বলেন, পরিকাঠামো প্রকল্পে ঋণদাতা এই সংস্থার ঋণের পরিমাণ ৯০,০০০ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। মোদী চাইছেন সাধারণ মানুষের টাকাকে রাষ্ট্রায়ত্ত জীবনবিমা নিগম (এলআইসি) এবং স্টেট ব্যাঙ্কের (এসবিআই) মাধ্যমে ঘুরপথে ওই সংস্থার পুনরুজ্জীবনের কাজে লাগাতে।

‘লাইট, ক্যামেরা, স্ক্যাম’ শিরোনামের টুইটে রাহুল দাবি করেছেন, “২০০৭ সালে যখন মোদী গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী ছিলে্ন, তখন তিনি ‘গিফট সিটি’ নামের একটি প্রকল্প ‘উপহার’ দিয়েছিলেন আইএল অ্যান্ড এফএস-কে। আজ ১১ বছর কেটে গেলেও সেই ৭০,০০০ কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ বিন্দুমাত্র এগোয়নি। আর এখন এলআইসি এবং এসবিআইয়ের টাকায় ওই সংস্থাকে পুনরুজ্জীবনের চেষ্টা করছেন”।

আরও পড়ুন: মায়ের শ্লীলতাহানির বদলা নিতে বন্ধুর মন্ডু কেটে থানায় হাজির যুবক

উল্লেখ্য, এ মুহূর্তে এলআইসির হাতে রয়েছে সংস্থাটির ২৫ শতাংশ মালিকানা। মোদী সরকার চাইছে, আইএল অ্যান্ড এফএস-এ এই দুই রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার মালিকানা আরও বৃদ্ধি করতে।

অন্য একটি টুইটে রাহুল লিখেছেন, “মোদী সরকার কি এলআইসির টাকায় আইএল অ্যান্ড এফএস-কে বাঁচাতে চাইছে? দেশের নাগরিকরা তাঁদের কষ্টার্জিত টাকা দিয়ে একটা এলআইসি পলিসি কিনে থাকেন। তা হলে কেন তাঁদের টাকা ব্যবহার করা হবে একটি প্রতারক সংস্থার পুনরুজ্জীবনে”?

একই সঙ্গে কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হয়েছে, দেশের সরকার  ‘লেম্যান ব্রাদার্স’ প্রকৃতির অর্থনীতি নিয়ে আসতে চলেছে। পাশাপাশি ওই সংস্থা কী ভাবে মাত্র চার বছরে ৪২,০০০ কোটি টাকা খুইয়েছে তারা জন্য ফরেন্সিক অডিটেরও দাবি তোলা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন