30 C
Kolkata
Friday, June 18, 2021

লিভ-ইন সম্পর্ক নৈতিক, সামাজিক ভাবে গ্রহণযোগ্য নয়, বলল হাইকোর্ট

আরও পড়ুন

খবর অনলাইন ডেস্ক: নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন জানিয়েছিল পালিয়ে বেড়ানো এক জুটি। তারা লিভ-ইন সম্পর্কে (live-in-relationship) লিপ্ত। তবে পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট (Punjab and Haryana High Court) সেই আবেদন খারিজ করে দিয়ে জানাল, “একটি লিভ-ইন সম্পর্ক নৈতিক ও সামাজিক ভাবে গ্রহণযোগ্য নয়”।

আবেদনকারী গুলজা কুমারী (১৯) এবং গুরবিন্দর সিং (২২) উচ্চ আদালতের কাছে আবেদনে বলেছিলেন, তাঁরা এক সঙ্গে বাস করছেন এবং শীঘ্রই বিয়ে করার কথাও ভেবেছিলেন। তাঁরা অভিযোগ করেছিলেন, গুলজার বাবা-মায়ের কাছ থেকে তাঁদের জীবনের ঝুঁকি রয়েছে।

Loading videos...
- Advertisement -

১১ মে-র একটি আদেশে বিচারপতি এইচএস মদন বলেন, “প্রকৃতপক্ষে, বর্তমান আবেদনে আবেদনকারীরা নিজেদের লিভ-ইন সম্পর্কে আইনি সিলমোহর চাইছেন। যা নৈতিক ও সামাজিক ভাবে গ্রহণযোগ্য নয় এবং এ ক্ষেত্রে নিরাপত্তা দেওয়ার কোনো নির্দেশ দেওয়া যায় না”।

আবেদনকারীর আইনজীবী জে এস ঠাকুর জানান, গুলজা এবং গুরবিন্দর তারন তারান জেলায় এক সঙ্গে থাকতেন। লুধিয়ানায় বসবাসকারী গুলজার বাবা-মা এই দু’জনের সম্পর্ককে মেনে নেননি।

বিয়ে করার কথা ভেবেছিলেন, অথচ বিয়ে করেননি কেন? এ প্রসঙ্গে আইনজীবী জানান, গুলজার বয়সের প্রমাণপত্রগুলি তাঁর বাবা-মায়ের কাছে রয়েছে। ফলে নথির অভাবে ওই জুটি বিয়ে করতে পারেননি।

প্রসঙ্গত, যুগ বদলেছে। লিভ-ইন সম্পর্ক এখন বেড়ে চলেছে। অনেকে এমনটাও মনে করেন, এক সঙ্গে থাকতে থাকতে একে অন্যকে ভালো করে বুঝে নেওয়া যায়। কিন্তু এ ধরনের সম্পর্কের আইনি মান্যতা নিয়ে বিতর্কের অন্ত নেই।

আরও পড়তে পারেন: ‘লিভ-ইনে থাকা মহিলারা রক্ষিতার সমান,’ বিতর্কিত মন্তব্য রাজস্থানের মানবাধিকার কমিশনের

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

- Advertisement -

আপডেট

মুকুল রায়কে সামনে রেখে শুভেন্দু অধিকারীকে চাপে ফেলে দিলেন কুণাল ঘোষ

মুকুল রায়কে নিয়ে এত দৌড়াদৌড়ির কী আছে, বাড়িতে গিয়ে বাবাকে বলতে পারেন শুভেন্দু, বললেন কুণাল!

পড়তে পারেন