আউলি (উত্তরাখণ্ড): পরিবেশকর্মীদের আপত্তি, পাহাড়প্রেমীদের ক্ষোভপ্রকাশ এবং উত্তরাখণ্ড হাইকোর্টের আপত্তির পরেও উত্তরাখণ্ডের আউলিতে প্রবল জাঁকজমকে সম্পন্ন হল সাউথ আফ্রিকার দুই ভারতীয় শিল্পপতির ছেলেদের বিয়ে। দুশো কোটির এই বিয়ের পাঠ চুকলেও এ বার অঞ্চল পরিষ্কার করতে হিমশিম খাচ্ছেন পুরকর্মীরা। গোটা ঘটনায় যারপরনাই ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা।

উত্তরাখণ্ডের স্কি-রিসর্ট হিসেবে পরিচিত আউলিতে গত ১৮ থেকে ২০ জুন বিয়ে হয় অজয় গুপ্তার ছেলে সূর্যকান্তের আর ২০ থেকে ২২ জুন বিয়ে সম্পন্ন হয় অতুল গুপ্তার ছেলে শশাঙ্কের। যোগগুরু রামদেবের পাশাপাশি প্রচুর বলিউড তারকা এই বিয়েতে হাজির হয়েছিলেন। সবাই বিয়ে নিয়েই মজে ছিলেন, কারও মুখে পরিবেশ ধ্বংস নিয়ে একটা টুঁ শব্দও শোনা যায়নি। উত্তরাখণ্ড হাইকোর্টের নির্দেশ ছিল কোনো ভাবেই বিয়ের অঞ্চলে হেলিপ্যাড তৈরি করা যাবে না। কিন্তু সেই নির্দেশের তোয়াক্কা না করেই হেলিকপ্টারে করেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অতিথিরা এই বিয়েতে হাজির হয়েছিলেন।

আরও পড়ুন লিচু নয়, বিহারের এনসেফালাইটিসে শিশুমৃত্যুর কারণ…

পরিবেশ নিয়ে সবারই ‘থোড়াই কেয়ার’ মনোভাব। বিয়ের পর সবাই আউলি ছেড়ে চলে গিয়েছেন, কিন্তু স্থানীয় এবং জোশীমঠ পুরসভার কর্মীদের জন্য রেখে গিয়েছেন বর্জ্যপদার্থ। এই বর্জ্য এখনই পরিষ্কার না করলে আসন্ন বর্ষায় আউলি এবং জোশীমঠে সাংঘাতিক কাণ্ড ঘটে যেতে পারে। এই বর্জ্য পরিষ্কারের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে পুরসভার সুপারভাইজার অনিলকে। ৪০ জন কর্মী নিয়ে তিনি দিনরাত এক করে কাজ করছেন। একটাই উদ্দেশ্য, বর্ষার আগে সব কিছু পরিষ্কার করে ফেলতে হবে।

দলের এক সদস্য বলেন, “এ রকম বর্জ্যসমস্যা এই অঞ্চলে আগে কখনও হয়নি। প্রায় ৪০ কুইন্টল বর্জ্য ফেলে রাখা হয়েছে পুরো উপত্যকা জুড়ে।” সংবাদসংস্থা এএনআইকে এক স্থানীয় বলেন, “চারিদিকে বোতল এবং প্লাস্টিক পড়ে রয়েছে। আমাদের গোরুরা ওই অঞ্চলে চড়ে বেড়ায়। কোনো গোরু যদি প্লাস্টিক খেয়ে ফেলে, সরকারি কী দায়িত্ব নেবে!”

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here