লকডাউনের মেয়াদ বাড়াতে পারে কেন্দ্র, সর্বদলীয় বৈঠকে ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর

ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: আগামী ১৪ এপ্রিল দেশের সব জায়গা থেকে লকডাউন প্রত্যাহার না করার ইঙ্গিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বুধবার সর্বদলীয় বৈঠকে তিনি বলেন, পরিস্থিতি যে দিকে এগোচ্ছে, তাতে আগামী ১৪ এপ্রিল লকডাউন শেষ করা সম্ভব হবে না।

গত ২৩ এপ্রিল করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সারা দেশে লকডাউন জারি করা হয়। মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা আগামী ১৪ এপ্রিল। এ দিনের সমস্ত রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, লকডাউন প্রত্যাহারের বিষয়টি সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমেই স্থির করা হবে। তবে আপাতত যা পরিস্থিতি, তাতে মনে হয় না এখনই লকডাউন প্রত্যাহার করা সম্ভব।

করোনা-পূর্ব এবং করোনা-উত্তর পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, “কোভিড-১৯ (COVID-19‌)-এর পরে আর জীবন আর আগের মতো হবে না”।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সমস্ত রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বের সঙ্গে এ দিনের বৈঠকে অংশ নেন মোদী। জানা গিয়েছে, তিনি রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের উদ্দেশে বলেন, “এর পরে আমাদের প্রচুর আচরণগত, সামাজিক এবং ব্যক্তিগত পরিবর্তনগুলি গ্রহণ করতে হবে”।

এ দিনের বৈঠকে অংশ নেওয়া বিজেডি নেতা পিনাকী মিশ্র সংবাদ মাধ্যমের কাছে বলেন, এক ধাক্কায় সারা দেশ থেকে লকডাউন না তোলারই ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আগামী ১১ এপ্রিল মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনার পরই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে এটা স্পষ্ট, এ মুহূর্তে ভারতে যা পরিস্থিতি তাতে, এখনই সারা দেশ থেকে লকডাউন তুলে নেওয়া সম্ভব নয়।

একটি সূত্র জানাচ্ছে, এ দিনের বৈঠকে অংশ নেওয়া একাধিক রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি লকডাউন প্রত্যাহারের বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করেন। এ মুহূর্তে লকডাউন প্রত্যাহার হলে, পরিস্থিতি আরও ভয়ঙ্কর হতে পারে বলে ব্যাখ্যা দেন তাঁরা।

আরও পড়ুন: বেসরকারি ল্যাবের চড়া ফি-য়ে লাগাম টানার নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

এ দিনই স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রিপোর্ট অনুযায়ী জানা গিয়েছে, দেশে মোট করোনাভাইরাস (Coronavirus) আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৪৯। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা বলছেন, এর পরে আরও যত পরীক্ষা করা হবে, তখন আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.