ramleela

সিরোহি (রাজস্থান): দেশের অধিকাংশ জায়গার মতোই দশেরা পালনের জন্য প্রস্তুত ছিল রাজস্থানের সিরোহি। রাবণ দহন দেখার জন্য রামলীলা ময়দানে উপস্থিত হয়েছিলেন স্থানীয় মানুষজন। সবার অপেক্ষা, কখন রাবণের পুতুলের দিকে তির ছুঁড়ে আগুন ধরাবেন ‘ভগবান শ্রীরাম’। কিন্তু সবাইকে চমকে দিয়ে ‘রাবণ’কে না দহন করেই ফিরে গেলেন ‘শ্রীরাম’। সেই সঙ্গে অভিযোগ করে গেলেন, মঞ্চে উপস্থিত বিজেপি নেতাই আসল রাবণ। এই আবহে রাবণের কুশপুতুলকে পোড়াতে পারবেন না তিনি।

ঠিক এই কাণ্ডটাই ঘটিয়েছেন, রামের চরিত্রে অভিনয় করা স্থানীয় অভিনেতা মনোজ কুমার মালি। রামলীলার ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় বিজেপি নেতা সুরেশ সাগরবংশী। তাঁকে দেখেই মনোজ কুমার বলে ওঠেন, “আসল রাবণ তো মঞ্চে বসে রয়েছেন, সব কিছুতেই রাজনীতির রঙ লাগাচ্ছেন। এই অবস্থাই একরাশ হতাশা নিয়েই ফিরতে হচ্ছে ভগবান রামকে।”

অভিনেতার অভিযোগ, সিরোহিতে গরবা পালনের জন্য যে ক’টা কমিটি রয়েছে, তার মধ্যে এই বিজেপি নেতার কমিটিই সব থেকে বেশি অনুদান পায়। তিনি বলেন, “সব কিছুতেই রাজনীতি করেন সাগরবংশী। সিরহিতে অন্তত কুড়িটা গরবার কমিটি রয়েছে, যারা নবরাত্রীতে বিনোদনমূলক বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। একমাত্র সাগরবংশীর কমিটি ছাড়া বাকি কমিটিগুলি ১১,০০০ টাকা করে অনুদান পেয়েছে, অন্যদিকে সাগরবংশীর কমিটি পেয়েছে ৩১,০০০ টাকা অনুদান।”

মনোজ কুমারের পাশাপাশি তাঁর দলে অন্তত একশো ছিলেন যারা বানর সেনার চরিত্রে অভিনয় করছিলেন। ওই অভিনেতার সঙ্গে তাঁরাও মঞ্চ ছেড়ে চলে যান। ছেড়ে যাওয়ার আগে ওই বিজেপি নেতা এবং সংগঠকদের বিরুদ্ধে স্লোগানও দিতে থাকেন তাঁরা। এরপর দর্শক আসনে বসে থাকা এক কিশোরকে তড়িঘড়ি রাম বানিয়ে রাবণ দহন করানো হয়।

যদিও তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ খণ্ডন করেছেন এই বিজেপি নেতা। তাঁর দাবি, “মুষ্টিমেয় কিছু মানুষের জন্য আজকের অনুষ্ঠান প্রায় ভেস্তে যেতে বসেছিল। যে গর্বা কমিটির সঙ্গে আমি যুক্ত রয়েছি সেটি শহরের সব থেকে বড়ো। অনেক বেশি খরচা হয় বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য।” সামনের বছর থেকে তাঁরা যে অনুদান নেবেন না, সে কথাও বলেন এই বিজেপি নেতা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here