ভোপাল : এখন মদ্যপরা পেটাবেন না, পেটানি খাবেন। নববিবাহিত মহিলাদের হাতে বরের নেশা তাড়ানোর দাওয়াই তুলে দিলেন খোদ মন্ত্রী। মধ্যপ্রদেশের পঞ্চায়েতি রাজ ও গ্রামোন্নয়নমন্ত্রী গোপাল ভার্গব রাজ্যের প্রায় ৭০০ নববিবাহিত মহিলার হাতে একটি বিশেষ উপহার তুলে দেন বিয়ের যৌতুক হিসেবে। উপহার, কাপড় কাচার কাঠের মুগুর। উদ্দেশ্য, রাজ্যে নেশাখোর মাতালদের শায়েস্তা করা। মধ্যপ্রদেশের গারহাকোটায় একটি গণবিবাহ অনুষ্ঠানে এই উপহার দেওয়ার ব্যবস্থা করেন মন্ত্রী। বলা হয় ‘শরাবিয়োঁ কে সুতারা হেতু ভেঁট’। এ ছাড়াও দেওয়া হয় ঘরকন্নায় প্রয়োজনীয় অন্যান্য জিনিসও। প্রসঙ্গত, গোটা মধ্যপ্রদেশে বিভিন্ন জায়গায় অক্ষয় তৃতীয়ার শুভ দিনে এমন গণবিবাহের আয়োজন করা হয়।

 

স্বামীরা নেশা করে ঘরে ফিরলে স্ত্রীরা যেন এই মুগুরের উপযুক্ত ব্যবহার করেন, পরামর্শ মন্ত্রীর। তিনি বলে দেন, এই ‘বর পেটানো’র ব্যাপারে পুলিশ কোনো রকম হস্তক্ষেপ করবে না। শুধু বর না পরিবারের যে কোনো সদস্যই যদি মাতাল হয়ে বাড়ি ফেরে তাঁদের সকলের ক্ষেত্রেই এই একই দাওয়াই যেন দেওয়া হয়। মধ্যপ্রদেশের বিভিন্ন পিছিয়ে পড়া এলাকার মহিলারা মদের বিরুদ্ধে নানা ভাবে প্রতিবাদ গড়ে তুলেছেন। এটা তারই একটা অঙ্গ।

নববিবাহিতের এক জন হরি বাই। তিনি বলেন, এই ব্যবস্থায় তিনি খুব খুশি। এত দিন মহিলা্রা পড়ে পড়ে মার খেয়েছে। এ বার তাঁদের হাতে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, বুন্দেলখণ্ডে এর আগে নেশার বিরুদ্ধে বেশ কিছু প্রতিবাদ করেছিলেন মহিলা। রাজ্যে মদ নিষিদ্ধ করারও দাবি জানানো হয় বিভিন্ন সংগঠনের তরফ থেকে। সুপ্রিম কোর্টও জাতীয় ও রাজ্য সড়কের ৫০০ মিটারের মধ্যে মদ বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে। বিভিন্ন রাজ্যেও মদ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here