মুম্বই: যত সময় গড়াচ্ছে, ততই গভীর হচ্ছে মহারাষ্ট্রের উদ্ধব ঠাকরে সরকারের সংকট। এমন পরিস্থিতিতে বড়ো সংখ্যার শিবসেনা কর্মীরা রাস্তায় নেমে পড়তে পারেন। এমন তথ্য পাওয়ার পরই শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেই মহারাষ্ট্রের সমস্ত থানায় জারি করা হয়েছে হাই-অ্যালার্ট।

একটি আবেগঘন বক্তৃতায় মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে বলেছিলেন, শিবসেনাকে ভাঙার চেষ্টা করছে বিদ্রোহীরা। তিনি বলেন, “যাঁরা চলে গেছেন, তাঁদের জন্য আমার খারাপ লাগবে কেন? শিবসেনা এবং ঠাকরের নাম ব্যবহার না করলে আপনারা কী ভাবে এগোবেন”।

সর্বশেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, শিবসেনাকে ভাঙন ধরাতে প্রয়োজনীয় ৩৭ বিধায়কের সমর্থন পেয়ে গিয়েছেন বিদ্রোহী বিধায়কদের ‘মাথা’ একনাথ শিন্ডে। তিনি দাবি করেছেন, সেনা এবং নির্দল মিলিয়ে তাঁর সঙ্গে ৫০ জন বিধায়কের সমর্থন রয়েছে।

পরিস্থিতি নজরে রেখে সন্ধ্যায় উদ্ধবের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এনসিপি প্রধান শরদ পওয়ার। মাতোশ্রীতে উদ্ধবের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে শরদের। এনসিপি প্রধানের সঙ্গে ছিলেন জয়ন্ত পাতিল ও অজিত পওয়ারও।

গোটা রাজ্য জুড়েই পরিস্থিতি যেন থমথমে। আশংকা করা হচ্ছে, রাস্তায় নামতে পারেন শিবসেনা কর্মীরা। এমন তথ্য হাতে আসার পরই মহারাষ্ট্রের সমস্ত থানায় হাই অ্যালার্ট জারি মহারাষ্ট্র পুলিশ। শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতেই পুলিশের এই পদক্ষেপ।

একাংশে জল্পনা, বিধানসভায় ‘মহা বিকাশ আঘাডী’ জোটের সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব জমা দিতে পারেন শিন্ডে। পালটা হিসেবে বিদ্রোহী বিধায়কদের বিরুদ্ধে ধাপে ধাপে দলত্যাগ বিরোধী আইনে অভিযোগ আনতে সক্রিয় হয়েছে উদ্ধব শিবির। বৃহস্পতিবার শিন্ডে-সহ ১২ বিধায়কের পর শুক্রবার আরও ৪ জন বিদ্রোহী বিধায়কের পদ খারিজের জন্য ভারপ্রাপ্ত স্পিকারের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে।

আরও পড়তে পারেন:

১ জুলাই থেকে হচ্ছে না, ডেবিট-ক্রেডিট কার্ড টোকেনাইজেশন পিছোল আরও ৩ মাস বাড়ল

কনস্টেবল থেকে ধনকুবের! ৮ জুলাই পর্যন্ত জেল হেফাজতে অনুব্রত মণ্ডলের দেহরক্ষী

গুজরাত দাঙ্গায় মোদীকে ক্লিনচিট দেওয়ার বিরুদ্ধে মামলা খারিজ করল সুপ্রিম কোর্ট

বেতন এবং কাজের সময়ে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন, ১ জুলাই থেকেই চালু হতে পারে নয়া আইন

মাসে দেড় হাজার টাকায় শিক্ষক! তাও আবার অনার্স এবং বিএড-সহ, বিজ্ঞপ্তি ঘিরে বিতর্ক

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন