আস্থা ভোটের পর দিনই বিধানসভায় ফের বাজিমাত কংগ্রেস-এনসিপি-শিবসেনা জোটের

0

ওয়েবডেস্ক: কংগ্রেসের নান পাতোলে মহারাষ্ট্র বিধানসভার স্পিকার হিসাবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হলেন। গত শনিবার বিধানসভার আস্থা ভোটে ১৬৯ বিধায়কের সমর্থন পাওয়ার পর এ দিন বিধানসভার অধ্যক্ষ নির্বাচনেও বাজিমাত করেল কংগ্রেস-এনসিপি-শিবসেনা জোট।

এ দিন সকাল ১০টার মধ্যেই প্রার্থী প্রত্যাহার করে নেয় বিজেপি। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডনবিস বলেন, বিনা ঐতিহ্যগত ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্যই বিজেপি প্রার্থী প্রত্যাহার করে নিয়েছে। কী সেই ঐতিহ্য?

নানা পাতোলে

মহারাষ্ট্র বিধানসভায় বরাবর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতাতেই অধ্যক্ষ নির্বাচন হয়ে আসছে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি চন্দ্রকান্ত পাতিল এ বিষয়ে বলেছেন, বিধানসভার মর্যাদা অক্ষুন্ন রাখতে আমাদের প্রার্থী কিষাণ কাথোরের নাম প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ক্ষমতাসীন এনসিপি-কংগ্রেস-শিবসেনা জোট আস্থা ভোটের একদিন পর মহারাষ্ট্র বিধানসভায় অধ্যক্ষপদের জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। মহারাষ্ট্র বিধানসভা অধ্যক্ষপদে বিজেপি প্রার্থী কিষাণ কাথোরের মনোনয়ন ফিরিয়ে নেওয়ার পর জোট প্রার্থী নানা পাতোলকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হিসাবে ঘোষণা করা হয়।

আস্থা ভোটে এনসিপি এবং কংগ্রেসের সমর্থনে শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে ১৬৯টি ভোট পেয়ে মহারাষ্ট্রের বিধানসভায় শক্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। মহা বিকাশ আঘাড়ির তিন শরিক শিবসেনা, এনসিপি এবং কংগ্রেসের সদস্যদের মধ্যে স্পষ্ট ক্ষমতা ভাগাভাগির সূত্র অনুসারে – অধ্যক্ষপদটি কংগ্রেসের জন্য নির্ধারিত ছিল। অন্য দিকে উপ-মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার কথা এনসিপি থেকে।

আস্থা ভোটে ১৬৯ বিধায়কের সমর্থন পেলেন উদ্ধব ঠাকরে

শনিবার কংগ্রেস বিধায়ক নানা পাতোলেকে মহারাষ্ট্র বিধানসভার অধ্যক্ষপদে নির্বাচনের জন্য ক্ষমতাসীন শিবসেনা-কংগ্রেস-এনসিপি জোটের প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা করে। অন্য দিকে বিজেপি নিজের মনোনীত প্রার্থী হিসাবে কিষাণ কাথোরের নাম ঘোষণা করে। তবে এ দিন নির্বাচনের আগেই প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.