man beheaded
ছবি: এনডিটিভি থেকে

ওয়েবডেস্ক: কর্নাট‌কের মান্ডিয়া জেলায় ঘটছে এমনই এক মারাত্মক ঘটনা। পশুপতি নামের এক যুবক বন্ধুর মন্ডু কেটে সটান হাজির হন থানায়। পুলিশ জানিয়েছে, গিরিশ নামে তাঁরই এক বন্ধু পশুপতির মায়ের শ্লীলতাহানি করে। এ কথা জেনে নিজেকে স্থির রাখতে পারেননি ওই যুবক। সঙ্গে সঙ্গে তিনি গিরিশের সঙ্গে দেখা করেন। সেখানে দু’জনের মধ্যে বচসা চরম পর্যায়ে পৌঁছায়। এর পর পশুপতি ধারাল অস্ত্র দিয়ে গিরিশের ধড় থেকে নামিয়ে দেন মাথা। তার পর সেই কাটা মন্ডু নিয়ে থানায় আত্মসমর্পণ করেন।

এই নিয়ে কর্নাটকে এমন ঘটনা তিন বার ঘটল। গত মাসে শ্রীনিবাসপুরার বাসিন্দা আজিজ খান এক মহিলার কাটা মাথা নিয়ে থানায় হাজির হন। পুলিশের কাছে তিনি জানান, ওই মহিলার সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ছিল।


পড়তে পারেন: বারুইপুরকাণ্ডের পর লাইন টপকে যাতায়াত বাড়ছে, বিশেষ ব্যবস্থা রেলের

কয়েক মাস আগে চিকম্যাঙ্গালুরু থানায় একটি দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন মাথা নিয়ে হাজির হন সতীশ নামে এক ব্যক্তি। সতীশ পুলিশের কাছে জানান, স্ত্রীর বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ক তিনি হাতেনাতে ধরে ফেলেন। তার পরই তাঁর মণ্ডু কেটে থানায় হাজির হন। তবে সতীশ আক্ষেপ করে পুলিশের কাছে জানান, স্ত্রীর প্রেমিকের মাথা কাটতে না পারার জন্য তিনি দু:খিত।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন