পানজিম: গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন মনোহর পররিকর। তাঁর শপথের ওপর কোনো স্থগিতাদেশ দেয়নি শীর্ষ আদালত। একক বৃহত্তম দলকে না ডেকে কেন অন্য দলকে সরকার গড়তে ডাকা হল, এই প্রশ্ন তুলে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল কংগ্রেস।  

তবে শপথে স্থগিতাদেশ না দিলেও, নতুন সরকারকে বৃহস্পতিবারই বিধানসভায় আস্থাভোট করানোর নির্দেশ দিয়েছে প্রধান বিচারপতি জেএস কেহরের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ। যদিও রাজ্যপাল মৃদুলা সিনহা আস্থা ভোটের জন্য পররিকরকে পনেরো দিন সময় দিয়েছিলেন। কংগ্রেসের বক্তব্য ছিল, একক বৃহত্তম দলকে সরকার গড়তে ডাকাই সংসদীয় রীতি। রাজ্যপাল মৃদুলা সিনহা সেই রীতি ভেঙেছেন। বিষয়টি দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জে এস কেহরের কাছে আবেদন জানান গোয়ার কংগ্রেস পরিষদীয় দলের নেতা চন্দ্রকান্ত কাভলেকর। শপথের আগেই বিষয়টি নিয়ে জরুরি শুনানির জন্য বিশেষ বেঞ্চ তৈরি করেন প্রধান বিচারপতি।   

মহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টি, গোয়া ফরোয়ার্ড পার্টি এবং নির্দলদের সঙ্গে রবিবার সারা দিন ধরে আলাপ আলোচনা চালায় বিজেপি, বিশেষ করে কথা বলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পররিকর। ২১ জন বিধায়ক তাঁকে সমর্থন করবেন বলে তিনি রাজ্যপালকে জানান। এর আগে রবিবার বিজেপি সংসদীয় দলের বৈঠকে মনোহর পররিকরকে মুখ্যমন্ত্রীপদের প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা করা হয়।

৪০ সদস্যের গোয়া বিধানসভায় ১৭টি আসন জিতে কংগ্রেস একক বৃহত্তম দল হলেও সরকার গড়ার ব্যাপারে তারা পিছিয়ে পড়ে বিজেপির কাছে। বিজেপির দখলে ১৩টি আসন। সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজন ছিল ২১ জনের সমর্থন। মহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টি ও গোয়া ফরোয়ার্ড পার্টির ৩ জন করে বিধায়ক, নির্দল রোহন খাউন্তে এবং বিজেপি সমর্থিত নির্দল গোবিন্দ গৌড়ে সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় সরকার গড়ার জন্য প্রয়োজনীয় সমর্থন জোগাড় করে নেন মনোহর।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here