শৈত্যপ্রবাহের কবলে দেশ, দিল্লিতে হিমাঙ্কের কাছে তাপমাত্রা, রাঁচিতে পারদ নামল পাঁচের নীচে

0

ওয়েবডেস্ক: কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর জানিয়েছিল এ বছর উষ্ণতম শীত দেখতে পারে ভারত। কিন্তু সেই হিসেবকে পুরো উলটেপালটে দিয়েছে এ বারের শীত।

শনিবার দিল্লির সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে গিয়েছে ২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। গত ছ’ বছরের মধ্যে ডিসেম্বরের শীতলতম দিন দেখে ফেলল দিল্লি। ২০১৩ সালে শেষ বার এতটা নেমেছিল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এতটা কমে যাওয়ায় দিল্লিবাসীর অসুবিধা আরও বাড়তে বাধ্য। কারণ একেই এমনিতেও সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রির ওপরে উঠছে না বলে রাজধানীর বাসিন্দারা শীতে পুরোপুরি থরহরিকম্প।

উত্তর ভারত থেকে জব্বর শীতের এই জারিজুরি এ বার নেমে এসেছে পূর্ব ভারতেও। ঝাড়খণ্ডের রাঁচিতে এ দিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪.৭ ডিগ্রি। রাজ্যের কোথাও কোথাও তাপমাত্রা তিন ডিগ্রিতে নেমে গিয়েছে।

আরও পড়ুন বর্ষা ছিল স্বাভাবিকের থেকে বেশ কম, তবুও বৃষ্টির নিরিখে ২০১৯-এ এক অনন্য রেকর্ড করেছে দক্ষিণবঙ্গ

বিহারে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা আরও কম। শনিবার গয়ায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩.২ ডিগ্রি। অন্য দিকে কাশ্মীরের শ্রীনগরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমেছে -৫.৮ ডিগ্রিতে।

শীতে কাঁপছে হিমাচল-লাদাখও। শনিবার কেলংয়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল -১৫ ডিগ্রি। সব মিলিয়ে বছরের শেষে জম্পেশ শীতে কাঁপছে ভারতের অর্ধেক অংশ।

তবে বছরের একদম শেষলগ্নে শীত থেকে রেহাই মিলতে পারে। কারণ শক্তিশালী পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে ৩১ ডিসেম্বর থেকে ৩ জানুয়ারি পর্যন্ত ঝড়বৃষ্টি হবে উত্তর আর পূর্ব ভারতে।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.