নয়াদিল্লি: তাঁর কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে, এই অভিযোগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজ্যসভা থেকে ইস্তফা দিলেন মায়াবতী। রাজ্যসভার সদস্য হিসাবে বহুজন সমাজ পার্টির সুপ্রিমোর মেয়াদ ফুরোতে আরও ন’ মাস বাকি ছিল। রাজ্যসভার চেয়ারম্যান হামিদ আনসারির কাছে তিন পাতার পদত্যাগপত্র জমা দেন মায়াবতী। এ দিন বিরোধীপক্ষের অবিরাম বাধাদানের ফলে সংসদের উভয় কক্ষের অধিবেশন সারা দিনের জন্য মুলতবি করে দেওয়া হয়।

উত্তরপ্রদেশের সাহারানপুরে দলিতদের ওপর অত্যাচার বিরোধীরা আলোচনার দাবি জানাতে থাকলে রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান পি জে কুরিয়েন মায়াবতীকেই প্রথম বলার অনুমতি দেন। কিন্তু তাঁর জন্য তিন মিনিট সময় বরাদ্দ করা হয়। ডেপুটি চেয়ারম্যান এ ব্যাপারে তাঁকে সতর্কও করে দেন। কিন্তু তিন মিনিটের মেয়াদ পেরিয়ে যাওয়ার পরেও বক্তৃতা চালিয়ে গেলে মায়াবতীকে থামিয়ে দেন ডেপুটি চেয়ারম্যান। তারই প্রতিবাদে সাংসদপদে ইস্তফা মায়াবতীর।

রাজ্যসভার চেয়ারম্যানকে লেখা পদত্যাগপত্রে মায়াবতী লিখেছেন, “আমি যখন বলতে উঠি, সরকারপক্ষ আমাকে আমার বক্তব্য শেষ করার সুযোগ দেয়নি। তাদের সদস্যরা দাঁড়িয়ে উঠে আমাকে বাধা দেন… তাঁদের বাধা দিতে বারণ না করে ডেপুটি চেয়ারম্যান আমাকেই তিন মিনিটের মধ্যে বক্তব্য শেষ করতে বলেন। কোন আইনে আছে এক জন সদস্য তিন মিনিটের বেশি বলতে পারবে না। এটা অনুচিত।”

বিজেপি মায়াবতীর এই পদত্যাগকে নাটক বলে বর্ণনা করেছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন