সাত বছরের ছেলে এবং দশ বছরের মেয়ের গলায় কুড়ুলের কোপ মেরে খুনের অভিযোগ মায়ের বিরুদ্ধে

0
crime
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: রবিবার সকালে একটি সাত বছরের ছেলে এবং ১০ বছরের মেয়ের গলায় কুড়ুলের কোপ মেরে তাদের খুনের অভিযোগ উঠল মায়ের বিরুদ্ধে। মধ্যপ্রদেশের শাহদোল এলাকার বাসিন্দা মহিলার স্বামী দাবি করেছেন, তাঁর স্ত্রী “মানসিক ভাবে অসুস্থ”। তবে তাঁর দাবি আদৌ সত্য কি না, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

অভিযুক্তের স্বামী মুন্না বাইগা পুলিশকে জানিয়েছেন, তাঁর স্ত্রী “মানসিক ভাবে অসুস্থ”। শাহদোলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রবীণকুমার ভুরিয়া সংবাদ মাধ্যমের কাছে জানান, অভিযুক্ত মহিলাকে গ্রেফতারের পর তাঁকে জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেখানে তাঁর চিকিৎসা চলছে।

পুলিশের কাছে দেওয়া মুন্নার জবানবন্দি অনুযায়ী, ছেলে-মেয়েরাও মায়ের অসুস্থতার কারণে তাঁকে ভয় পেত। যে কারণে তারা দিদিমার কাছে থাকত। কিন্তু এ দিন সকালে মুন্না প্রাতকর্ম সারতে বাইরে যাওয়ার পর মহিলা তাঁর ছেলে-মেয়ের গলায় কুড়ুলের কোপ মেরে খুন করেন। এর পর ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহগুলি বাইরে ফেলে দিয়ে একটি ঘরের ভিতর দরজা বন্ধ করে নিজেকে লুকিয়ে রাখেন।

ভুরিয়া জানান, মুন্না তাঁদের জানিয়েছেন, তাঁর স্ত্রী, গুড্ডান-ই এ দিন তাঁর ছেলে এবং মেয়েকে খুন করেছেন। গুড্ডানের অসুস্থতার চিকিৎসা আগে থেকেই চলছিল। এ দিন ছেলে-মেয়েকে একা পেয়ে তাদের খুন করার পর নিজে একটি মাটির ঘরে লুকিয়ে পড়ে। পরে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায়। এবং ওই ঘরের খড়ে চাল দিয়ে ভিতরে ঢুকে তাঁকে গ্রেফতার করে।

[ আরও পড়ুন: প্রকাশ্য দিবালোকে বাড়িতে ঢুকে সাংবাদিককে খুন উত্তরপ্রদেশে ]

ঘটনাস্থলে যাযন ফরেন্সিক সায়েন্স ল্যাবের প্রতিনিধিরাও। তাঁরা ঘটনাস্থল থেকে নমুনা সংগ্রহ করেন। মুন্নার দাবি সত্য কি না, তা খতিয়ে দেখার জন্য মহিলার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হচ্ছে জেলা হাসপাতালে।

নিহত ছেলে এবং মেয়ে দু’টির নাম যথাক্রমে রাহুল এবং কাজল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here