কেন্দ্রীয় সরকারের শ্রমিক নীতির বিরুদ্ধে শুক্রবার, ধর্মঘটে সামিল হচ্ছে বাম-কংগ্রেস-সহ দেশের ১০টি শ্রমিক সংগঠন। তার ৭২ ঘণ্টা আগে, কেন্দ্রীয় সরকারের অদক্ষ অকৃষি শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি বাড়ানোর কথা ঘোষণা করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।

মঙ্গলবার, একটি সাংবাদিক সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী জানান, অদক্ষ অকৃষি শ্রমিকদের মজুরি দৈনিক ২৪৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে দৈনিক ৩৫০ টাকা করা হবে। তিনি আরও জানান যে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের ২০১৪-১৫ আর ২০১৫-১৬ বছরের বকেয়া বোনাসও পরিবর্তিত নিয়ম অনুযায়ী দেওয়া হবে। জেটলির আশ্বাস, বিভিন্ন হাইকোর্ট আর দেশের সুপ্রিম কোর্টে বোনাস সংক্রান্ত বিচারাধীন মামলাগুলির তাড়াতাড়ি নিষ্পত্তি করার জন্য সরকার সব রকম চেষ্টা চালাচ্ছে।

বিদ্যুৎমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল আর শ্রমমন্ত্রী বন্দারু দত্তাত্রেয়কে পাশে বসিয়ে জেটলি এদিন বলেন, “গত দেড় বছর ধরে বিভিন্ন কেন্দ্রীয় শ্রমিক সংগঠনের সাথে আন্তঃমন্ত্রক কমিটির কথা হয়েছে। শ্রমিক সংক্রান্ত আর অর্থনীতি সংক্রান্ত বিভিন্ন দাবি শুনেছে সেই কমিটি। তাদের দাবি অনুযায়ী অনেকগুলি সিদ্ধান্ত সরকার নিয়েছে”। শ্রমমন্ত্রীর নেতৃত্বে ন্যূনতম মজুরি উপদেষ্টা বোর্ডের মিটিং-এ এই মজুরি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এর পাশাপাশি জেটলি আরও বলেন যে চুক্তিবদ্ধ শ্রমিক এবং তাঁদের ঠিকাদার সংস্থাদের রেজিস্ট্রেশন জরুরি আর এই ব্যাপারে রাজ্যগুলিকেও নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে। যে ঠিকাদাররা এই সব মানবেন না তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানান তিনি। স্টেট ব্যাঙ্কের সহযোগী ব্যাঙ্কগুলিকে স্টেট ব্যাঙ্কের সাথে মিলিয়ে দেওয়ার প্রস্তাবের যে বিরোধিতা হচ্ছে সেই প্রসঙ্গে জেটলি বলেন, “মিলিয়ে দেওয়ার ব্যাপারটা শ্রমিক সংগঠনের বিষয় নয়। সহযোগী ব্যাঙ্কগুলির পরিষেবায় কোনও প্রভাব পড়বে না। ব্যাঙ্ক কর্মচারীদের স্বার্থেও ঘা লাগবে না। সরকার যদি মনে করে আরও শক্তিশালী ব্যাঙ্ক থাকা প্রয়োজন, তা হলে শ্রমিক সংগঠনদের দৃষ্টিভঙ্গি পালটাতে হবে”।    

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here