BJP leader Janardhana Reddy with sushma swaraj
ফাইলছবি

ওয়েবডেস্ক: সামনে পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন, বছর ঘুরলেই লোকসভা। তারই আগে কর্নাটকের প্রভাবশালী বিজেপি নেতা জি জনার্দন রেড্ডিকে গ্রেফতার করল পুলিশ।

কর্নাটকের উপনির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর দিন থেকেই পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে গা-ঢাকা দেওয়ার অভিযোগ ওঠে বল্লারির এই খনি-ব্যবসায়ীর নামে। সেন্ট্রাল ক্রামই ব্রাঞ্চের তরফে তাঁর বাড়িতে তল্লাশিও চালানো হয়। শোনা যায়, তিনি হায়দরাবাদে ঘাঁটি গেড়েছেন। এরই মধ্যে গত শনিবার একটি ভিডিও বার্তায় তিনি জানান, মিডিয়ায় তাঁকে নিয়ে যে সমস্ত খবর ছড়ানো হচ্ছে, তা আদতে ভিত্তিহীন। তিনি কর্নাটকেই আছেন। এর পর ওই দিনই তাঁকে জেরা করা হয়। নিজেকে নির্দোষ প্রমাণের জন্য বেশ কিছু নথি তিনি তদন্তকারীদের সামনে উপস্থাপন করেন।

একটি চিটফাণ্ডের কয়েকশো কোটির আর্থিক তছরূপ ঢাকতে সংশ্লিষ্ট এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের এক আধিকারিককে দেওয়ার জন্য তিনি ওই সংস্থার মালিকের কাছ থেকে ১৮ কোটি টাকা নিয়েছিলেন বলে অভিযোগ ওঠে। পুলিশ জানিয়েছে, অতীতে অন্য একটি মামলায় তিন বছরের হাজতবাস করা জনার্দনকে দীর্ঘ কয়েক ঘণ্টা জেরার পর গ্রেফতার করা হয়।

বেঙ্গালুরু এসপি অলোক কুমার জানিয়েছেন, আমি পর্যাপ্ত তথ্য এবং সাক্ষীর বয়ানের ভিত্তিতেই জনার্দন রেড্ডিকে গ্রেফতার করেছি। আমরা কয়েকশো বিনিয়োগকারীর টাকা উদ্ধার করে তাঁদের হাতে ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছি।


আরও পড়ুন: ভোটের আগের দিনই ফের পুলিশ-মাওবাদী সংঘর্ষ ছত্তীসগঢ়ে, হত এক মাওবাদী নেতা


উল্লেখ্য, ৪৯ বছর বয়সের জনার্দন কর্নাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরিয়াপ্পার মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন। সে সময়ই একটি হোটেলে ডেকে ওই ঘুষ বিনিময়ের অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here