নয়াদিল্লি : নিখোঁজ বায়ুসেনার বিমান সুখোই-৩০। মঙ্গলবার সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে উত্তরপূর্বাঞ্চলের সালোনিবাড়ি থেকে উড়েছিল বিমানটি। অসমের তেজপুর থেকে ৬০ কিলোমিটার দূরে চিন সীমান্তের কাছে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় রাশিয়া নির্মিত এই জেট যুদ্ধবিমানটির। বিমানে ছিলেন দু’ জন বিমান চালক। সোনিতপুর জেলার ডেপুটি কমিশনার মেজর কুমার ডেকা জানান, গোহপুরের নিকটবর্তী দুবিয়া এয়ার ট্র্যাফিক কনট্রোলের কাছ থেকেই বিমানটির সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। ঘটনাটি জানা মাত্রই তিনি পার্শ্ববর্তী জেলা প্রশাসনের কাছে এই খবর পৌঁছে দিয়েছেন। বিভিন্ন জায়গায় নিখোঁজ বিমানের তল্লাশি চলছে।

বেশ কিছুদিন ধরেই ইঞ্জিনের সমস্যা-সহ আরও নানান সমস্যা দেখা দিয়েছিল এই ধরনের বিমানগুলিতে। তাই গত মার্চ মাসে রাশিয়ার সঙ্গে এই মর্মে ভারত একটা চুক্তিও স্বাক্ষর করে। চুক্তির বিষয়বস্তু হল এই বিমানের প্রযুক্তিগত দেখভাল আর যাবতীয় যন্ত্রাংশ সরবরাহ করবে রাশিয়া।

উল্লেখ্য, রাশিয়া নির্মিত এই বিমানগুলি দুটি ইঞ্জিন বিশিষ্ট। যে কোনো মরশুমে একে যুদ্ধে ব্যবহার করা যাবে। আকাশ পথে বা আকাশ থেকে মাটিতে যে কোনো অবস্থানের শত্রুপক্ষকে আক্রমণ করতে সক্ষম এই বিমান। ১৯৯০ সালে ভারত প্রথম এই বিমান আমদানি করেছিল। তার পর থেকে সাত সাত বার এই বিমান বিগড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। তাই এই ঘটনার কারণ হিসেবে প্রাথমিক ভাবে প্রযুক্তিগত ত্রুটির কথাই মনে করা হচ্ছে। এর আগে ১৫ মার্চ রাজস্থানের বারমারের কাছে একটি সু-৩০ বিমান ভেঙে পড়ে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন