modi-xingping

ওয়েবডেস্ক: ‘কৌশলগত প্রেক্ষিতে আলোচনা হবে, কথাবার্তা হবে আন্তরিক’, চিন সফরে রওনা হওয়ার আগে এই বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বছর চারেক পরে আবার দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধান একান্তে কথা বলবেন।

শুক্রবার এবং শনিবার চিনের উহানে চিনা প্রেসিডেন্ট ঝি জিনপিং-এর সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা মোদীর। ডোকলাম পরবর্তী পরিস্থিতিতে এই বৈঠকের দিকে তাকিয়ে রয়েছে দুই দেশের রাজনৈতিক মহল। সেই সফরে রওনা হওয়ার আগেই দিল্লিতে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেন মোদী।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, “দ্বিপাক্ষিক এবং আন্তর্জাতিক নানা বিষয়ে চিনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আমার আলোচনা হবে। বর্তমান এবং ভবিষ্যতের আন্তর্জাতিক পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের দুই দেশের জাতীয় প্রাধান্য কী হওয়া উচিত সেই ব্যাপারে আলোচনা করব।”

কৌশলগত এবং দীর্ঘমেয়াদী প্রেক্ষিতে চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক উন্নতির ব্যাপারেও আলোচনা হবে বলে জানান মোদী।

২০১৪-য় সাবরমতি আশ্রমে নরেন্দ্র মোদী এবং ঝি জিনপিং-এর ঘরোয়া কথাবার্তা হয়। এ বার দুই নেতা আলোচনায় বসবেন কিংবদন্তি কমিউনিস্ট নেতা মাও জে দং-এর খুব প্রিয় জায়গা ছিল এই উহানে।  এখানে বিশাল ইয়াংৎসে নদীর ধারে একটি বাগানে অবসরে সাঁতার কাটতে ভালোবাসতেন মাও।

এই মুহূর্তের মোদীর চিন সফরের সঙ্গে অনেকেই রাজীব গান্ধীর ১৯৮৮-এর চিন সফরের সঙ্গে তুলনা করছেন। ১৯৬২-এঁর চিন যুদ্ধের প্রেক্ষিতে রাজীবের ওই চিন সফরের গুরুত্ব ছিল অপরিসীম। ঠিক এখন যেমনটা হয়েছে। গত বছরের ডোকলাম এখন অতীত। সেই স্মৃতি ভুলে কী ভাবে দু’দেশের সম্পর্ক এগিয়ে যাবে সেই দিকেই নজর গোটা দেশের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here