নয়াদিল্লি: গোরক্ষার নাম করে হিংসা ক্রমশ বাড়ছে দেশ জুড়ে। বছর দুয়েক আগে উত্তর প্রদেশের দাদরিতে গরুর মাংস রাখার গুজবে খুন হন মহম্মদ আখলাক। কয়েক দিন আগেই ঠিক একই ধরনের ঘটনা ঘটে রাজস্থানেও। এই ধরণের ঘটনার নিন্দা করলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের প্রধান মোহন ভগবত।

গোরক্ষার নাম করে মানুষ যাতে হিংসায় না জড়িয়ে পড়ে সেই প্রসঙ্গেই রবিবার মহাবীর জয়ন্তী উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানে ভগবত বলেন, “গরুকে বাঁচানোর নামে হিংসা ছড়ানো আইনের পরিপন্থী।” সাধারণ মানুষের প্রতি তাঁর আবেদন, “আইন মান্য করা জরুরি।”

কিন্তু এ ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে যাতে আর না ঘটে তার উপায়ও বলে দিয়েছেন ভগবত। তাঁর কথায়, “দেশ জুড়ে গো-হত্যা বন্ধ করার জন্য আইন করা উচিত কেন্দ্রের।” প্রসঙ্গত কেরল, পশ্চিমবঙ্গ এবং উত্তরপূর্বের কয়েকটি রাজ্য ছাড়া সাড়া দেশেই গো-হত্যা নিষিদ্ধ। 

উল্লেখ্য, এক দিকে উত্তরপ্রদেশে অবৈধ কসাইখানা বন্ধের পর গো-হত্যাকারীদের যাবজ্জীবন সাজার সুপারিশ করে আইন করেছে গুজরাত, তার কিছু দিনের মধ্যেই ছত্তীসগঢ়ের মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংহের, “গরু মারলে ফাঁসিতে ঝোলাব” জাতীয় মন্তব্যে এমনিতেই পরিস্থিতি ছিল উত্তপ্ত। এরই মধ্যে গত সপ্তাহে রাজস্থানের অলোয়ারে গরু কেনার বৈধ কাগজপত্র দেখানো সত্ত্বেও গোরক্ষা বাহিনীর হাতে পেহলু খান নামক এক ব্যক্তির খুন হয়ে যাওয়ার ফলে দেশে রাজনৈতিক চর্চা এখন এই গরুকে ঘিরেই। 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here