cpim amd bjp in tripura assembly election

ওয়েবডেস্ক:  ত্রিপুরায় যেন তেন প্রকারে জিততে কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপি প্রচারে সর্বশক্তি প্রয়োগ করছে। ৬০ আসনের রাজ্যে ক্ষমতা দখল করতে ভিন রাজ্য থেকে নিয়ে আসা হচ্ছে অর্থ-গাড়ি, এমনকী নেতা-কর্মীও। এমনটাই দাবি করেছে রাজ্যের শাসক দল সিপিএম। তবে বিজেপির সোজা সাপটা জবাব, গত আড়াই দশকে বাম শাসনের প্রতি মোহমুক্তি ঘটেছে সাধারণ মানুষের। সেই ছবিই স্পষ্ট হয়ে ধরা পড়ায় প্রমাদ গুণছে সিপিএম।

হাতে আর মাসখানেকও সময় নেই। ফলে ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনে সম্পূর্ণ প্রার্থী তালিকা ঘোষিত না হলেও প্রচারের কাজে খামতি রাখছে না কোনো রাজনৈতিক দলই। একেবারে প্রথমেই প্রাথমিক প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছিল শাসক দল সিপিএম। তার পর বিজেপি এবং সব শেষে সমস্যায় জর্জরিত কংগ্রেসও প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করল গত শনিবার। তবে রাজ্যের এ বারের নির্বাচন যে মূলত সিপিএম বনাম বিজেপির মধ্যেই হতে চলেছে তা নিয়ে সংশয়ের অবকাশ নেই কোনো মহলেই।

ভোটার তালিকার সংশোধন নিয়ে বিজেপির দাবিকে অযোক্তিক আখ্যা দিয়ে সিপিএমের ত্রিপুরা সম্পাদক বিজন ধর আগেই প্রশ্ন তুলেছিলেন, বিজেপি অসম থেকে গাড়ি নিয়ে এসে প্রচার করছে। তাদের সহযোগী হিসাবে কাজ করছে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। কোটি কোটি টাকা ঢেলে প্রচারের কাজ চলছে। এত টাকা কোথা থেকে আসছে?

এই ধরনের অভিযোগই এখন উঠে আসছে সিপিএমের  ভোট প্রচারের প্রকাশ্য জনসভাগুলিতে। কারণ রাজ্যস্তরে বিজেপি-কে আক্রমণের তেমন কোনো ইস্যু হাতের কাছে নেই তাদের। যা রয়েছে পুরোটাই জাতীয় রাজনীতির। স্বাভাবিক ভাবেই বিজেপির ক্রমবর্ধমান প্রচার আস্ফালনই এখন তাদের মূল আলোচ্য বিষয়। তবে বিজেপ-ও থেমে থাকার নয়। ত্রিপুরা নির্বাচনের দায়িত্ব প্রাপ্ত বিজেপি নেতা হিমন্তবিশ্ব শর্মা বরিবার বলেন, সিপিএম-কে নিয়ে রাজ্যের মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। অপশাসন আর দুর্নীতি এমন জায়গায় পৌঁছেছে যে মানুষ নিষ্কৃতি পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

বিজেপির বিরুদ্ধে সিপিএমের প্রচার কৌশল নিয়ে তিনি বলেন, ‘গত ২৫ বছর ধরে এই দল শুধু মাত্র মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে মানুষকে ভুলিয়ে রেখেছিল। এখন বিজেপি-কে পাশে পেয়ে মোহমুক্তির স্বাদ পেতে চাইছেন রাজ্যবাসী।’

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here