eid prayers in kerala temple
পুরাপ্পাল্লিক্কাব রক্তেশ্বরী মন্দিরে ইদের প্রার্থনা। ছবি সৌজন্যে নিউজ এইটিন ডট কম।

ত্রিসুর: সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য নজির গড়ল বন্যাবিধ্বস্ত কেরল। কাছাকাছি মসজিদটি জলে ডুবে যাওয়ায় বুধবার ইদের নমাজের জন্য দরজা খুলে দিল এক হিন্দু মন্দির। এই ঘটনা ঘটেছে মালার কাছে এরাভাথুরে।

এরাভাথুরের পুরাপ্পাল্লিক্কাব রক্তেশ্বরী মন্দিরের কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত করেন, কাছাকাছি কচুকাদাব মহল মসজিদটি বন্যার জলে ডুবে যাওয়ায় বুধবার ইদ-উল-আধার নমাজের জন্য তাঁরা তাঁদের মন্দির সংলগ্ন হলঘরটি খুলে দেবেন। সেই সিদ্ধান্তমতো এই হলঘরেই ইদের নমাজ পড়েন মুসলিম সম্প্রদায়ের অসংখ্য মানুষ।

আরও পড়ুন: গোরুর মাংস খাওয়ার ফলেই কেরলে বন্যা! ‘শবরীমালা’র পর ফের কুৎসিত মন্তব্য

শ্রীনারায়ণ ধর্ম পরিপালন যজ্ঞম (এসএনডিপি) পরিচালিত এই মন্দিরে ইতিমধ্যেই বন্যার্তদের জন্য ত্রাণশিবির খোলা হয়েছে। এলাকায় ত্রাণকাজে দেখাশোনা করছেন অভিনব নামে এক যুবক। তিনি বলেন, “মন্দিরের হলঘরে ইতিমধ্যেই ত্রাণশিবির খোলা হয়েছে। আমরা বুঝতে পেরেছিলাম কাছাকাছি কোনো শুকনো জায়গা নেই যেখানে জড়ো হয়ে ইদের নমাজ পড়া যায়। তাই এখানকার যুবকরা নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে হলঘরটিকে অস্থায়ী ইদগা (প্রার্থনাকক্ষ) বানিয়ে দেন।”

আরও পড়ুন: ইউপিএ আমলের সিদ্ধান্তকে হাতিয়ার করেই কেরলের জন্য বিদেশি সহায়তায় ‘না’ কেন্দ্রের

অভিনব আরও জানান, “নিজেদের ধর্ম ভুলে এখানকার মানুষজন আশেপাশের বাড়ি থেকে মাদুর ইত্যাদি জোগাড় করে হলঘরটিকে অস্থায়ী প্রার্থনাকক্ষ করে তোলেন। আজ এখানে ৩০০-এরও বেশি মানুষ নমাজ পড়েছেন। তার পর সভা হয়েছে। বন্যাদুর্গতদের জন্য বিশেষ প্রার্থনার ব্যবস্থা করা হয়।”

ত্রিসুর জেলার বন্যাদুর্গত অঞ্চলগুলির মধ্যে যে সব এলাকার অবস্থা খুব খারাপ তাদের মধ্যে অন্যতম এরাভাথুর। এখানে তিনটি ত্রাণশিবির খোলা হয়েছে।

 

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন