এনডিটিভি। উল্লেখ্য, সুপ্রিম কোর্ট দিল্লি ও তার আশেপাশের অঞ্চলে আতসবাজি বিক্রি নিষিদ্ধ ঘোষণা করার এক দিন পরেই এই আমন্ত্রণ জানালেন মধ্যপ্রদেশের মন্ত্রী। ইতিমধ্যে সুপ্রিম কোর্ট এই রায় দেওয়ার পরে কেন্দ্রীয় পরিবেশমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন সহ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা এই রায়কে স্বাগত জানিয়ে টুইট করেছেন। পেশায় ইএনটি সার্জন হর্ষ বর্ধন ১৯৯৩ সালে রাজনীতিতে যোগ দেন। বিস্ময়ের ব্যাপার কিছু লোক সুপ্রিম কোর্টের রায়কে ‘ঐতিহ্য-বিরোধী’ তকমা দেওয়ার পরেই হর্ষ বর্ধনের টুইট উধাও হয়ে গিয়েছে। এ দিকে ভোপালে মন্ত্রী ভূপেন্দ্র সিং দীপাবলি, ধর্ম এবং সংস্কৃতির মধ্যে যোগসূত্র রচনা করে বলেছেন, “আমরা রামরাজ্যের কথা বলি, রামরাজ্যের স্বপ্ন দেখি। চোদ্দো বছর বনবাসে কাটিয়ে ভগবান রাম বাড়ি ফিরলেন। তাঁর সেই প্রত্যাবর্তন উদযাপন করতেই দীপাবলি উৎসব। আমরা যদি সেই উৎসব পালন করতে না পারি, তা হলে তার অর্থ কী?” মন্ত্রী বলেন, দিল্লিবাসীরা যদি ফোন বা চিঠির মাধ্যমে তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন, তা হলে তাঁরা ভোপালে দীপাবলির দিন বাজি ফাটানোর সব রকম ব্যবস্থা করে দেবেন।  ]]>

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন