‘ডেল্টা প্লাস’ মৃত্যু ঘটালেও মধ্যপ্রদেশে কোভিড-সংক্রমণের হার এখন মাত্র ০.০৯ শতাংশ

0
[নমুনা পরীক্ষা। প্রতীকী ছবি: এনডিটিভি থেকে]

খবরঅনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের অত্যন্ত সংক্রামক ‘ডেল্টা’ প্রজাতির উপপ্রজাতি ‘ডেল্টা প্লাস’ নিয়ে দেশ জুড়ে হইচই শুরু হয়ে গিয়েছে। দেশের করোনার দ্বিতীয় ঢেউ যখন কমার মুখে, তখন এই ‘ডেল্টা প্লাস’ নিয়ে মানুষের মধ্যে আতংক তৈরি হয়ে গিয়েছে। মানসিক স্বাস্থ্যে ব্যাপক ভাবে এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।

এরই মধ্যে শুক্রবার একটি খবরকে কেন্দ্র করে নতুন করে আতংক তৈরি হচ্ছে মানুষের মধ্যে। জানা গিয়েছে মধ্যপ্রদেশে ‘ডেল্টা প্লাস’-এ সংক্রমিত দুই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যে মোট ৭ জনের শরীরে এই উপপ্রজাতিটি পাওয়া গিয়েছে।

কিন্তু এর পরেও মধ্যপ্রদেশে হুহু করে কমে চলেছে করোনার দৈনিক সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় তো সংক্রমণের হার ০.১ শতাংশেরও নীচে এসে গিয়েছে।

আক্রান্ত মাত্র ৬২

গত ২৪ ঘণ্টায় মধ্যপ্রদেশে নতুন করে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন মাত্র ৬২ জন। এই সময়সীমায় মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৬৮ হাজার ৪৫৩টি। অর্থাৎ রাজ্যে সংক্রমণের হার ছিল ০.০৯ শতাংশ। এর অর্থ হল এখন ১ হাজার ১০০টি টেস্ট হলে তবেই রাজ্যে একজন কোভিড-আক্রান্তের সন্ধান মিলছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় মধ্যপ্রদেশের ৩১ জেলায় নতুন করে কোনো আক্রান্তের খোঁজ মেলেনি। এ ছাড়া ১৯ জেলা এমন ছিল যেখানে আক্রান্ত হয়েছেন ৫-এরও কম মানুষ। সব থেকে বেশি আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে ইনদওরে। এই জেলায় আক্রান্ত হন ১০ জন।

উল্লেখ্য, এপ্রিলের মাঝামাঝিই কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের শিখরে পৌঁছে গিয়েছিল মধ্যপ্রদেশ। তখন দৈনিক ১৩ হাজার জন আক্রান্ত হতেন এই রাজ্যে। টেস্ট হত ৭০ হাজারের কাছাকাছি। এখন টেস্টের পরিমাণ এক রকম থাকলেও বিপুল ভাবে কমেছে আক্রান্তের সংখ্যা।

গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিডে ২২ জনের মৃত্যু রেকর্ড করেছে মধ্যপ্রদেশ। এর মধ্যে দু’ জন এমন মানুষও ছিলেন যাঁদের শরীরে করোনার ‘ডেল্টা প্লাস’ উপপ্রজাতিটি ছিল।

আগে থেকেই ডেল্টা প্লাস ভারতে রয়েছে

স্বাভাবিক ভাবেই মধ্যপ্রদেশের খবরে নতুন করে আতংকিত হয়ে পড়েছেন অনেকেই। কিন্তু আদতে এই উপপ্রজাতিটি নতুন কিছু জিনিস নয়। মহারাষ্ট্রে এমন দু’ জনের শরীরে এই ‘ডেল্টা প্লাস’-এর সন্ধান মিলেছে যাঁরা ৫ এবং ১৫ এপ্রিলের মধ্যে কোভিড পজিটিভ হয়েছিলেন। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের কথায়, এই ‘ডেল্টা প্লাস’ অনেক আগে থেকেই ভারতে আছে আর এর জেরে এখনও পর্যন্ত নতুন করে সংক্রমণ-বৃদ্ধি চোখে পড়েনি।

অনেকটাই একই কথা ইনস্টিটিউ অফ জেনোমিক্স অ্যান্ড ইন্টিগ্রেটিভ বায়োলজির (IGIB) প্রধান ডা. অনুরাগ আগরওয়ালের। ‘ডেল্টা প্লাস’কে কেন্দ্র করে ভারতে যখন তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা করছেন অনেকেই তখন ডা. আগরওয়াল জানিয়েছেন, “ডেল্টা প্লাস করোনা সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ ডেকে আনতে পারে, এই সংক্রান্ত কোনো প্রমাণ এই মুহূর্তে আমাদের কাছে নেই।”

উল্লেখ্য, কিছু দিন আগেই ‘ডেল্টা প্লাস’কে ‘উদ্বেগের প্রজাতি’ বা Variant of Concern হিসেবে চিহ্নিত করেছে কেন্দ্র। দেশে এখনও পর্যন্ত ৪০ জনের শরীরে এই উপপ্রজাতির হদিশ মিলেছে। এই প্রসঙ্গে ডা. আগরওয়াল বলেন, “ডেল্টা প্রজাতিটাই উদ্বেগের।” গত এপ্রিল-মে মাসে ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ যে ভয়াবহ আকার নিয়েছিল, তার মূলে ছিল এই অতি সংক্রামক ডেল্টা প্রজাতিটিই।”

ডা. আগরওয়াল সাফ বলেন, “ভারতে দ্বিতীয় ঢেউ দ্রুত কী ভাবে শেষ করা যায়, সেটা নিয়ে এখন আমাদের ভাবতে হবে। তৃতীয় ঢেউ নিয়ে ভাবার সময় এখন নয়।”

আরও পড়তে পারেন সেই ট্র্যাডিশন মেনেই শুক্রবার কমে গেল দেশের দৈনিক সংক্রমণ

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন