bullett trains

ওয়েবডেস্ক: নিজেদের হোমওয়ার্ক ঠিকঠাক না করেই কি বুলেট ট্রেনের স্বপ্ন সত্যি করতে নেমেছে ভারতীয় রেল? কিছু তথ্যের দিকে নজর দিলে অন্তত তেমনটাই মনে হবে।

মুম্বই এবং অমদাবাদের মধ্যে চালানো হবে ভারতের প্রথম বুলেট ট্রেন। এর জন্য গত সেপ্টেম্বরে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবেকে নিয়ে সেই প্রকল্পের শিলান্যাস করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মোট প্রকল্পে খরচ হবে প্রায় ১ লক্ষ কোটি টাকা। দশ বছরের মধ্যে পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা।

কিন্তু যে রুটের জন্য এত টাকা খরচ করতে চলেছে রেল, সে রুটে রেলের ক্ষতির পরিমাণ জানলে আপনি চমকে যাবেন। জুলাই-সেপ্টেম্বর ত্রৈমাসিকে মুম্বই এবং অমদাবাদের মধ্যে সবক’টি ট্রেন মিলিয়ে প্রায় ৪০ শতাংশ আসন খালি ছিল। অমদাবাদ-মুম্বই রুটে আসন খালি থাকার সংখ্যা আর একটু বেশি, ৪৪ শতাংশ। এমনই জানা গিয়েছে জনৈক অনিল গলগলির করা একটি তথ্যের অধিকার আইনের (আরটিআই) সুবাদে।

আরটিআইয়ের জবাবে পশ্চিম রেল জানিয়েছে, “মুম্বই থেকে ৩২টি অমদাবাদ্গামী ট্রেনে মোট আসন সংখ্যা সাত লক্ষ ৩৬ হাজার। এর মধ্যে জুলাই-সেপ্টেম্বর ত্রৈমাসিকে ভর্তি হয়েছিল মাত্র চার লক্ষ ৪২ হাজারটি আসন। এর ফলে রেলের আয় হয়েছিল ৩০ কোটি ১৬ লক্ষ টাকা। আসন সব ভর্তি থাকলে রেলের মোট আয় হওয়ার কথা ছিল ৪৪ কোটি ২৯ লক্ষ। অন্য দিকে ফিরতি রুটে ৩১টি ট্রেনে মোট সাত লক্ষ ছ’হাজার আসন সংখ্যার মধ্যে ভর্তি হয়েছিল মাত্র তিন লক্ষ ৯৮ লক্ষ আসন। এর ফলে ২৬ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকার বদলে রেলের আয় হয়েছিল মাত্র ১৫ কোটি ৭৯ লক্ষ টাকা।” অর্থাৎ দুটি রুট মিলিয়ে রেলের মোট ক্ষতির পরিমাণ প্রায় তিরিশ কোটি।

সব থেকে খারাপ অবস্থা ছিল এই রুটের চলা শতাব্দী এক্সপ্রেসে। আরটিআইতে জানা গিয়েছে মুম্বই থেকে অমদাবাদগামী শতাব্দী এক্সপ্রেসে ৫০ শতাংশ এবং ফিরতি ট্রেনে ৬৬ শতাংশ আসন খালি ছিল এই ত্রৈমাসিকে। আরটিআই থেকে এই তথ্য পেয়ে গলগলি বলেন, “এই রুটে বুলেট ট্রেন চালানোর জন্য ১ লক্ষ কোটি টাকা খরচ করতে চলেছে কেন্দ্র। অথচ তারা ঠিকঠাক হোমওয়ার্কই করেনি।”

যাত্রীসংখ্যার বিচারে মুম্বই-অমদাবাদ রুটে দশা বেশ করুণ, এর ওপর এই রুটে বুলেট ট্রেন চালালে রেলকে যে কত বড়ো ক্ষতির মুখে পড়তে হবে তা ধারণাও করা যাচ্ছে না।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here