Mumbak foot overbridge collapse
ভেঙে পড়া ফুট ওভারব্রিজ।

ওয়েবডেস্ক: ছত্রপতি শিবাজি টার্মিনাস (সিএসটি) রেলস্টেশনের ফুট ওভারব্রিজ ভেঙে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ছয়। এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ইতিমধ্যে ওভারব্রিজ ভেঙে পড়া নিয়ে রেল কর্তৃপক্ষ এবং বিএমসি (মুম্বই পুরসভা) একে অপরের ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে। মুম্বই পুলিশ অবশ্য কর্তব্যে অবহেলার জন্য মধ্য রেল ও পুরসভার কিছু অফিসারের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে।

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ শুক্রবার সকালে দুর্ঘটনাস্থলে যান। মুখ্যমন্ত্রী আহতদের সঙ্গে দেখা করেন। বলেন, “আহত ১০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এক জন আইসিইউ-তে রয়েছেন। সবাই বিপন্মুক্ত। দুর্ঘটনা নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।”

আরও পড়ুন মুম্বইয়ে ওভারব্রিজ ভাঙা: কড়া প্রতিক্রিয়া সচিনের

দায় ঝেড়ে ফেলার প্রতিযোগিতা চলছে মধ্য রেল এবং বিএমসির মধ্যে। পুরসভা গত বছরই ওই ওভারব্রিজের ‘সেফটি অডিট’ করায়। তাতে ওই ব্রিজকে ‘নিরাপদ’ ঘোষণা করা হয়েছিল। মধ্য রেলের মুখপাত্র জানান, “ব্রিজের ভেঙে পড়া অংশ সিএসটিকে যুক্ত করছে না। ওই অংশ পুরসভা এলাকায়। ওটা তৈরি করেছে পুরসভা, দেখভালও করে পুরসভা।”

এই ফুট ওভারব্রিজকে লোকে বলে ‘হিমালয় ব্রিজ’। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধে ৭.৩১ নাগাদ প্রচণ্ড জোর একটা শব্দ শোনা গেল। দেখা গেল, ডিএন রোডের ওপর ব্রিজের যে অংশটা রয়েছে সেটা ভেঙে পড়েছে। অফিস টাইমে এই দুর্ঘটনা। ৩৫ ফুট ওপর থেকে বহু মানুষকে নিয়ে ভেঙে পড়ল ব্রিজটা। বহু মানুষ চাপা পড়েছিলেন। তাঁদের একে একে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হল।”

সাধারণ মানুষজন বলছেন, আন্ধেরি স্টেশনে ওভারব্রিজ ভেঙে পড়া থেকে কোনোই শিক্ষা নেয়নি রেল বা পুরসভা। আন্ধেরি স্টেশনের ঘটনাটি ২০১৮-এর ৩ জুলাইয়ের। গোখেল রোডে পথচারীদের ব্যবহৃত অংশটি ভেঙে পড়ে পাঁচ জন গুরুতর জখম হন। কয়েক দিন পর এঁদের মধ্যে ২ জন হাসপাতালে মারা যান।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here