mumbai noise pollution
মুম্বই শহরের প্রতীকী ছবি।

মুম্বই: মায়ানগরী মুম্বই। ভারতের একমাত্র শহর যে কখনও ঘুমোয় না। এ তো গেল মুম্বইয়ের ইতিবাচক দিকগুলো। কিন্তু এরই মধ্যে মুদ্রার উলটো পীঠও রয়েছে। এত দিন পর্যন্ত আমরা সেটায় বিশেষ গুরুত্ব না দিলেও, এক চিত্রগ্রাহকের ক্যামেরায় সেটা ধরা পড়ার পর, আমাদের মনে নতুন করে প্রশ্ন তুলে দিয়ে যাচ্ছে।

চিত্রগ্রাহক জনি মিলারের ক্যামেরায় দুর্দান্ত ভাবে ধরা পড়ল মুম্বইয়ের ধনী-গরিব বৈষম্য। এক দিকে বৃহৎ অট্টালিকার সমারোহ এবং তার পাশেই টিনের চালের ঘর। আকাশ থেকে তোলা ছবিতে এই বৈষম্য ধরা পড়ল।

শুধু মুম্বই নয়, তাঁর ‘আনইকোয়াল সিন্স’ সিরিজের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং মেক্সিকোতেও এই বৈষম্যের ছবি ক্যামেরাবন্দি করেছেন তিনি।

এই বৈষম্য ক্যামেরাবন্দি করার পরিকল্পনা ছ’বছর আগে তাঁর মাথায় আসে, যখন তিনি দক্ষিণ আফ্রিকায় পা রেখেছিলেন। নিউজ১৮-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “কেপটাউন বিমানবন্দরে নামার সঙ্গে সঙ্গেই আপনাকে ঘিরে ধরবে টিনের চালের ঘর। আপনি যে দিকেই তাকাবেন দেখবেন একচালা ঘর। দেখে বোঝা যাবে আর্থিক ভাবে অস্বচ্ছলরাই থাকেন এখানে। সেখান থেকে দশ মিনিট এগোলেই আপনার সামনে চলে আসবে বড়ো বড়ো অট্টালিকা। বুঝতে পারবেন এখানে আর্থিক ভাবে স্বচ্ছল মানুষরাই থাকেন।” মিলারের তখনই মনে হয় শুধু কেপটাউনই নয় বিশ্বের আরও অনেক শহরেই এই বৈষম্য রয়েছে।

আরও পড়ুন কংগ্রেস নয়, রাজস্থানের নির্বাচনে এই দলটির সঙ্গে জোট করতে পারে বামেরা

২০১৬ সালে একটি ড্রোনের সাহায্যে মুম্বইয়ের এই ধনি-গরিব বৈষম্যের ছবি তোলেন মিলার। ছবিতে স্পষ্টতই বোঝা যাচ্ছে বৃহৎ অট্টালিকার পাশেই রয়েছে একচালা বাড়ি বিশিষ্ট বস্তিগুলো।

পেছনে রয়েছে অট্টালিকার সারি, সামনে বস্তির বাড়ি। ছবি: মিলারের ইস্টাগ্রাম থেকে

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন