nagaon-paper mill employee suicide
সপরিবার বিশ্বজিৎবাবু। পারিবারিক অ্যালবাম থেকে।

নিজস্ব সংবাদদাতা, গুয়াহাটি: ২৭ মাস বেতন নেই। তার জন্যই কি আত্মহত্যার পথ বেছে নিলেন নগাঁও পেপার মিলের অফিসার বিশ্বজিৎ মজুমদার?

পেপার মিলের সিনিয়র হোস্টেলে তাঁর এক সহকর্মীর ঘর থেকে সোমবার বিশ্বজিৎবাবুর দেহ পাওয়া যায়। দেহটিতে পচন ধরে গিয়েছিল। জাগিরোড থানার পুলিশ দেহটি ময়নাতদন্তের জন্য মরিগাঁও হাসপাতালে পাঠিয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, বিশ্বজিৎবাবু শনিবার থেকে নিখোঁজ ছিলেন। তাঁর বাড়ির লোকেরা এবং সহকর্মীরা তাঁকে মোবাইলে ধরার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তিনি কোনো সাড়া দেননি।

Loading videos...

৫৫ বছরের বিশ্বজিৎ মজুমদার পেপার মিলের ডিস্ট্রিবিউশন শাখার উচ্চপদস্থ অফিসার ছিলেন। গত ২৭ মাস মিল বন্ধ। কোনো কর্মীই এত দিন  ধরে বেতন পাচ্ছেন না। বিশ্বজিৎবাবুও পাননি। এ সব নিয়েই তিনি হতাশায় ভুগছিলেন বলে জানিয়েছেন বন্ধুবান্ধবরা।

আরও পড়ুন ১ মে থেকে গ্রাহকদের জন্য কিছু বদল আনতে চলেছে এস বি আই, জেনে নিন

রাষ্ট্রায়ত্ত হিন্দুস্তান পেপার কর্পোরেশন লিমিটেডের অধীন নগাঁও পেপার মিল ও কাছাড় পেপার মিলে ২০১৬ থেকে কাজ বন্ধ। গত ২৭ মাস ধরে কর্মীরা কোনো বেতন পাচ্ছেন না। কর্মীরা বার বার কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন করেছেন, কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। বিশ্বজিৎবাবুর মৃত্যুর ঘটনায় তাঁরা মর্মাহত এবং ক্ষুব্ধ।

গত ডিসেম্বরেই নগাঁও পেপার মিলের আরেক কর্মী কাঠসিং বরদলৈ জাগিরোডে মোবাইল টাওয়ার থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.