নয়াদিল্লি: প্রতিরক্ষা ও সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী সমন্বয় নিয়ে আলোচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো। দুই দিনের সফরে সোমবার নতুন দিল্লি এসেছেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট।

“আমাদের ‘পুবে কাজ কর’ নীতিতে ইন্দোনেশিয়া আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী”, যৌথ বিবৃতিতে বলেন মোদী। প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমরা অর্থনৈতিক ও রণনৈতিক স্বার্থ নিয়ে আলোচনা করেছি”। ভারত ও ইন্দোনেশিয়ার শক্তিশালী বাণিজ্যিক ও সাংস্কৃতিক সম্পর্কের কথাও এদিনের বিবৃতিতে উল্লেখ করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

উইডোডো বলেন, “আমাদের দুই দেশেরই বেশ কিছু অংশ সমুদ্রে রয়েছে। এই ক্ষেত্রেও দুটপক্ষের সহযোগিতা জরুরি। এই বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা চালাচ্ছি”। ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্টের বক্তব্য, সন্ত্রাবাদী হানা থেকে কেউই মুক্ত নয়, দুই দেশকেই যৌথ ভাবে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়তে হবে।

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলির সংগঠনের মধ্যে ইন্দোনেশিয়া, ভারতের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য সহযোগী। ২০০৭-২০০৮ সালে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ছিল ৪৩ হাজার কোটি টাকা, ২০১৪-১৫ সালে সেই পরিমাণ বেড়ে হয় ১,২০,০০০ কোটি টাকা। গত ১ বছরে বাণিজ্যের পরিমাণ ৫৬ হাজার কোটি টাকা কমে গিয়েছে, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার কারণে।

ভারতের থেকে ওষুধ শিল্প ও পরিকাঠামো ক্ষেত্রে বিনিয়োগ আশা করছে ইন্দোনেশিয়া। উইডোডো বলেন, “ পরিকাঠামো ক্ষেত্রে আমাদের বিশাল চাহিদা রয়েছে, এর মধ্যে রয়েছে রাস্তা, বিদ্যুৎ কেন্দ্র, বন্দর এবং বিমানবন্দর”। আন্তর্জাতিক দুনিয়ায় ভারসাম্য রাখতে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা এবং রাষ্ট্রপুঞ্জের মতো সংগঠনগুলিতে ইন্দোনেশিয়া ভারতের সঙ্গে একযোগে কাজ করতে চায় বলেও এদিন মন্তব্য করেন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here