দেরাদুন:  উত্তরাখণ্ডের আসন্ন নির্বাচনের আগে মঙ্গলবার দেরাদুনে চারধাম মহামার্গ বিকাশ পরিযোজনার শিলান্যাস করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেখানে বিজেপির পক্ষ থেকে আয়োজিত এক পরিবর্তন মিছিলে যোগ দিতে আসা মানুষের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুর্নীতির দিন শেষ হয়ে আসছে দেশে। একইসঙ্গে সরকারের বিমুদ্রাকরণের সিদ্ধান্তে দেরাদুনবাসীর সমর্থন চাইলেন নরেন্দ্র মোদী।

৯০০ কিলোমিটারের চারধাম সড়ক উন্নয়ন কর্মসূচির উদ্বোধনে এসে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উত্তরাখণ্ডের বন্যায় প্রাণ হারানো মানুষের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই এই কর্মসূচি গ্রহণ করল সরকার। ১২০০০ কোটি টাকার এই প্রকল্প ভবিষ্যতে বহু মানুষের কর্ম সংস্থানের সুযোগ করে দেবে, এই আশ্বাস দিয়ে মোদী বলেন এক নতুন অর্থনীতির দরজা খুলে দিতে পারে উত্তরাখণ্ডের এই প্রকল্প।

মঙ্গলবারের সভায় ইউপিএ সরকারের প্রতি একরাশ ক্ষোভ উগরে দেন এনডিএ প্রধান। বলেন, দারিদ্র্য রেখার নীচে বসবাস করা মানুষকে বিনামুল্যে গ্যাসের কানেকশন দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করেনি আগের সরকার। ‘এক পদ এক পেনশন’ নিয়ে চার দশক ধরে কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছতে না পারার জন্যেও আগের সব সরকারকেই দুষলেন প্রধানমন্ত্রী।

“ গ্রামে গ্রামে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার জন্য আমরা সময় চেয়েছিলাম ১০০০ দিন। ইতিমধ্যে দেশ জুড়ে ১২০০০ গ্রামে পৌঁছে গিয়েছে বিদ্যুৎ। ভারতীয় সেনা বাহিনীর জন্য ‘এক পদ এক পেনশন’ চালু করতে সরকার থেকে ৬৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছি আমরা”, দেরাদুনের সভায় বললেন নরেন্দ্র মোদী।

বিমুদ্রাকরণের ঘোষণার পর থেকে নোট বাতিলের স্বপক্ষে যুক্তি দিতে প্রতিটি সভায় মোদী মুখ খুলেছেন কালো টাকা নিয়ে। মঙ্গলবারের সভাতেও ব্যতিক্রম হয়নি তার। উত্তরাখণ্ডের মানুষের উদ্দেশে মোদী বলেছেন, “আপনারা আমাকে দেশের চৌকিদার হিসেবে নিযুক্ত করেছেন। দেশের কোথায়ও যাতে দুর্নীতি না থাকে, সেটা দেখার দায়িত্ব আমার। কালো টাকা যেকোনো সমাজের পক্ষেই ক্ষতিকারক। তাই নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া। এটা কালো টাকার বিরুদ্ধে যুদ্ধ। এছাড়া সরকারি পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে মেধাই হওয়া উচিত যোগ্যতার একমাত্র মাপকাঠি। সেই লক্ষে, দুর্নীতি এড়াতে আমরা তৃতীয় এবং চতুর্থ শ্রেণির সরকারি কর্মচারী নিয়োগে ইন্টারভিউ তুলে দিয়েছি।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here