প্রথা ভেঙে বিমানবন্দরে নেতানইয়াহু, মোদী দেখে এলেন ইহুদি নিধনযজ্ঞের স্মারক

0
314

তেল আভিভ: প্রথম ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ইজরায়েলের মাটিতে নেমে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী হিব্রুতে বললেন, “এখানে এসে আমি খুব খুশি।” কম যান না ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানইয়াহু। মোদীকে স্বাগত জানিয়ে হিন্দিতে বললেন, “আপ কা স্বাগত হ্যায় মেরে দোস্ত।”

প্রোটোকল ভেঙে মঙ্গলবার বিকেলে তেল আভিভের বেন গুরিওন বিমানবন্দরে নরেন্দ্র মোদীকে স্বাগত জানান বেঞ্জামিন নেতানইয়াহু। সাধারণত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও পোপকে স্বাগত জানানোর জন্যই ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে যান। শুধু বিমানবন্দরে স্বাগত জানানোই নয়, তিন দিনের ইজরায়েল সফরে মোদী যেখানে যেখানে যাবেন তার বেশির ভাগ জায়গাতেই সঙ্গী হবেন নেতানইয়াহু। ইজরায়েলি  প্রধানমন্ত্রী এটাও সাধারণত করে থাকেন মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতো কোনো অতিথি এলে।

এত উষ্ণতা দিয়ে অভ্যর্থনা করার জন্য ইজরায়েলি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিব্রুতে ভাষণ শুরু করেন। বলেন, “শ্যালম, এখানে আসতে পেরে আমি ভীষণ খুশি। প্রথম ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ইজরায়েলে এই বৈপ্লবিক সফরে আসা আমার কাছে একটা বিশেষ সম্মানের। নেতানইয়াহুর ভাই ইয়োনিকে ‘হিরো’ বলে সম্মান করে মোদী বলেন, “আপনাদের ইয়োনি আমাদের তরুণ প্রজন্মের কাছে একটা প্রেরণা বিশেষ।” ইজরায়েলকে ভারতের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সঙ্গী হিসাবে বর্ণনা করে মোদী এই বিপুল অভ্যর্থনার জন্য আরেক বার ধন্যবাদ জানান।

প্রধানমন্ত্রী ইজরায়েলের মাটি ছুঁতেই পিএমও অফিস থেকে টুইট করে বলা হয়, “দুটি দেশ শান্তি ও সমৃদ্ধির শরিক, মানবতার উন্নততর ভবিষ্যৎ নির্মাণের শরিক…প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে অভ্যর্থনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী নেতানইয়াহু।”

‘এয়ার ইন্ডিয়া ওয়ান’ তেল আভিভের বিমানবন্দর ছুঁতেই বিমান থেকে নেমে আসেন মোদী। এগিয়ে যান নেতানইয়াহু, হ্যান্ডশেক করে স্বাগত জানান। তার পর দুই নেতা একে অপরকে জড়িয়ে ধরেন। বিমানবন্দরে বিছানো লাল কার্পেট ধরে নির্ধারিত জায়গায় এসে তাঁরা অ্যাটেনশনের ভঙ্গিতে দাঁড়াতেই দু’ দেশের জাতীয় সংগীত বাজানো হয়। তার পর মোদীর সম্মানে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। মোদীর সফরকে ঐতিহাসিক আখ্যা দিয়ে নেতানইয়াহু বলেন, “আমরা ৭০ বছর ধরে এই দিনটির জন্য অপেক্ষা করছিলাম।” দুই নেতা আবার পরস্পরকে জড়িয়ে ধরেন। এর পরেই স্বাগত ভাষণ দেন ইজরায়েলি  প্রধানমন্ত্রী।

ইজরায়েলি  প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ইজরায়েল খোলা হাতে মোদীকে স্বাগত জানাচ্ছে। আমরা ভারতকে ভালোবাসি। আমরা আপনাদের সংস্কৃতিকে সম্মান করি। আপনাদের ইতিহাস, আপনাদের গণতন্ত্র, প্রগতির প্রতি আপনাদের দায়বদ্ধতাকে আমরা শ্রদ্ধার চোখে দেখি।”

তিন বছর আগে রাষ্ট্রপুঞ্জে মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎকারের প্রসঙ্গ তুলে নেতানইয়াহু বলেন, আমাদের জনগণ এবং আমাদের বিশ্বের জন্য আরও ভালো ভবিষ্যৎ  তৈরি করার অভিন্ন লক্ষ্যে যে আমরা ছুটে চলেছি, সেই পথ চলায় আমরা আপনাদের আত্মার আত্মীয় বলে মনে করি। ভারত আর ইজরায়েলের মধ্যে আর যে কটা দেওয়াল আছে তা ভেঙে দিতে আমরা সহমত হয়েছিলাম। আমরা একে অপরকে করমর্দন করেছিলাম। প্রগতির স্বার্থে আমরা ঐতিহাসিক অংশীদারিত্ব গড়ে তুলতে রাজি হয়েছিলাম। আমরা আবার প্যারিসে সাক্ষাৎ করি। বহুবার আমাদের মধ্যে ফোনে কথা হয়েছে। কিন্তু বন্ধু, আমার মনে আছে, আমাদের প্রথম সাক্ষাৎকারে আপনি কী বলেছিলেন। আপনি বলেছিলেন, যখনই ভারত-ইজরায়েলের সম্পর্কের কথা আসে, তখন আকাশটা সীমা হয়ে ওঠে।”

বিমানবন্দর থেকে মোদীকে নিয়ে নেতানইয়াহু ড্যাঞ্জিগার ফ্লাওয়ার ফার্মে যান। ইতিমধ্যেই ইজরায়েলে একটি ফুলের নাম মোদীর নামে রাখা হয়েছে। সেখান থেকে সোজা ইয়াদ ভাশেমে (ইহুদি নিধনযজ্ঞের স্মারক, ওয়ার্ল্ড সেন্টার ফর হোলোকাস্ট রিসার্চ, ডকুমেন্টেশন, এডুকেশন অ্যান্ড কমেমোরেশন)। সেখানে তাঁরা ‘হল অব নেমস’ ও শিশু স্মারকসৌধে যান এবং ‘হল অব রিমেমব্র্যান্স’-এ একটি স্মরণসভায় যোগ দেন।

তিন দিনের সফরে নেতানইয়াহুর সঙ্গে সন্ত্রাসবাদের বিপদ নিয়ে কথা বলবেন মোদী। কী ভাবে দু’ দেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরদার করা যায় তা নিয়েও কথা হবে। মোদী ইজরায়েলের প্রেসিডেন্ট রভেন রুভি রিভলিনের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করবেন এবং দুটি দেশের সিইও-দের সঙ্গেও আলাপ করবেন। দু’ দেশের মধ্যে গোটা সাতেক চুক্তিও সই হবে বলে জানা গিয়েছে।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here