কঠিন শর্তে সভাপতিপদে ইস্তফা ফিরিয়ে নিলেন নভজ্যোত সিংহ সিধু

0

নয়াদিল্লি: পঞ্জাব কংগ্রেসের সভাপতিপদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন নভজ্যোত সিংহ সিধু। তবে শুক্রবার জানিয়ে দিলেন, তিনি সভাপতিপদে ইস্তফা ফিরিয়ে নিয়েছেন, কিন্তু নিজের দলকে একটি ‘কঠিন’ শর্তের কথা জানাতেও ভোলেননি। বলেন, “নতুন অ্যাডভোকেট জেনারেল নিযুক্ত হলে” তবেই নিজের দায়িত্বে ফিরে আসবেন তিনি।

সিধুর এই শর্ত মেনে নেওয়া কঠিন হতে পারে পঞ্জাব কংগ্রেসের পক্ষে। কারণ, পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিংহ চন্নী না কি এপিএস দেওলের পদত্যাগ প্রত্যাখ্যান করেছেন বলে জানা গিয়েছে। ফলে তাঁকে পঞ্জাবের অ্যাডভোকেট জেনারেল পদ থেকে সরিয়ে দিতে সিধুর এই শর্ত মেনে নেওয়া বেশ কঠিন হতে পারে বলেই ধারণা রাজনৈতিক মহলের।

সপ্তাহ তিনেক আগে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর সঙ্গে বৈঠক করেন সিধু। তখনই শোনা যায় পদে ফিরতে পারেন তিনি। প্রত্যাশিত ভাবেই এ দিন তিনি বলেন, “আমি ইস্তফা দেওয়ার সিদ্ধান্ত ফিরিয়ে নিয়েছি”। তবে একই সঙ্গে তিনি জানিয়ে দেন, নতুন অ্যাডভোকেট জেনারেল নিযুক্ত না হওয়া পর্যন্ত দফতরে যাবেন এবং দায়িত্বও নেবেন না তিনি।

সিধুর ধারাবাহিক আক্রমণের পরে সোমবার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে নিজের পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছিলেন দেওল। তাঁর পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়েছে কি না, তা রাজ্য সরকার এখনও স্পষ্ট করেনি। সূত্র বলছে, দেওলের ইস্তফা মেনে নিতে চাইছেন না চন্নী। এই ঘটনাই আরও বেশি করে ক্ষুব্ধ করে তুলেছে সিধুকে। আবার অন্য এক‌টি সূত্রের দাবি, দেওল জানিয়েছেন, তিনি আদৌ ইস্তফা দেননি।

উল্লেখ্য, ২৭ সেপ্টেম্বর পঞ্জাবের অ্যাডভোকেট জেনারেল পদে এপিএস দেওলকে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পঞ্জাব সরকার। অ্যাডভোকেট জেনারেল পদে এপিএস দেওলের নিয়োগ নিয়ে গোড়া থেকেই আপত্তি ছিল সিধুর। দেওলকে অ্যাডভোকেট জেনারাল পদে নিয়োগ করায় কোনো ভাবেই এক মত হতে পারেননি প্রদেশ সভাপতি।

আরও পড়তে পারেন: চোখের জল আর গান স্যালুটে শেষ বিদায় সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন