আইনে স্নাতক হওয়ার পরেও কেন স্বাভাবিক পছন্দের পেশা আইনত নয়, প্রশ্ন প্রধান বিচারপতির

0
cji ranjan gogoi
প্রধান বিচারপতি। ছবি সৌজন্যে দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া।

ওয়েবডেস্ক: শনিবার ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈই বলেন, আইনজীবীদের ভূমিকা ও কার্যকারিতার দিকেও দৃষ্টিপাতের দরকার রয়েছে এবং বোঝা দরকার যে, বড়ো আকর্ষণ এবং সুযোগ সত্ত্বেও কোনো আইন স্নাতকের স্বাভাবিক পছন্দ কেন কোনো আইনত পেশা নয়? অর্থাৎ, আইনে স্নাতক হওয়ার পরেও ভবিষ্যৎ হিসাবে কেন তাঁরা আইনত পেশা বেছে নিচ্ছেন না, সেই প্রশ্নই তুললেন প্রধান বিচারপতি।

প্রধান বিচারপতি বলেন, আইনজীবীরা মামলাকারীদের সহায়তা করতে পরামর্শদাতা হিসাবে কাজ করেন এবং আইনের আওতায় তাঁদের অধিকার সুরক্ষিত করতে সহায়তা করেন। তাঁদের ক্লায়েন্টদের জন্য কাজ করার সময়, তাঁরা আইনটির ব্যাখ্যা ও ছাঁচ তৈরি করে এবং ভবিষ্যতের প্রজন্মের জন্য বাধ্যবাধকতা রয়েছে এমন আইনি প্রস্তাবগুলি রেখে বিচারকদের সহায়তা করেন।

গগৈ মনে করেন, আইনজীবীরা বিচারক, আলোচক এবং মধ্যস্থতাকারী হিসাবেও কাজ করেন এবং তাঁরাও দুর্দান্ত শিক্ষক। আইনি পরিষেবাপ্রদানকারী সংস্থা এবং কর্পোরেশনগুলিও জনপ্রিয় পছন্দ হয়ে উঠেছে। এই ধারা সামনের দিকেই এগোচ্ছে। বার এবং বেঞ্চের এই আকর্ষণীয় কেরিয়ারকে আরও বেশি করে প্রচারে নিয়ে আসা দরকার।

জাতীয় আইন বিশ্ববিদ্যালয়ের সপ্তম বার্ষিক সমাবর্তন উৎসবে অংশ নিয়েছিলেন প্রধান বিচারপতি। সেখানেই তিনি বলেন, আইন স্কুলগুলির উদ্দেশ্যই হল আইনজীবী, যাঁরা বারের প্রত্যাশিত নেতা, বেঞ্চের বিচারক এবং শিক্ষাবিদ এবং শিক্ষক হিসাবে দেশের সেবা করবেন, তাঁদের বের করে আনা।

[ আরও পড়ুন: আলিপুর আদালতে শর্তসাপেক্ষ জামিন মিলল রূপা-পুত্র আকাশের ]

একই সঙ্গে তিনি বলেন, আইন ও চারুকলার একটি সম্মিলিত ডিগ্রি, পঞ্চবার্ষিক আইন কোর্সটি তার যথেষ্ট চাহিদা পূরণ করতে পারছে কিনা, তার মূল্যায়ন এবং বিশ্লেষণের এখন সময় এসেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here