Netaji Subhas Chandra Bose

ওয়েবডেস্ক: নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ‘দেহাবশেষ’ ভারতে ফিরিয়ে নিয়ে আসার আবেদন পুনরুত্থাপন করলেন তাঁর কন্যা অনিতা বসুপাফ। কেন্দ্রীয় সরকারে কাছে আগেও একই আবেদন রেখেছিলেন অনিতা। জানা গিয়েছে, সুভাষচন্দ্রের ৭৩তম তিরোধান দিবসের আগে জাপান থেকে তাঁর ‘দেহাবশেষ’ ফিরিয়ে নিয়ে আসার সেই আবেদন পুনরায় জানিয়েছেন অনিতা।

অনিতার মতে, ১৯৪৫ সালের ১৮ আগস্ট তাইওয়ানে বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় সুভাষচন্দ্রের। সে বছরের সেপ্টেম্বর মাসেই টোকিওর রেনকোজি মন্দিরের তাঁর ‘দেহাবশেষ’ সংরক্ষণ করা হয়। তিনি বলেন, “পিতার ৭৩তম তিরোধান দিবসের আগে আমি আমার সেই পুরনো আবেদন পুনরায় ভারত ও জাপান সরকারের কাছে জানিয়েছি। জাপান থেকে তাঁর দেহাবশেষ ফিরিয়ে নিয়ে আসা হোক স্বাধীন ভারতের মাটিতে। বাবার স্বপ্ন ছিল স্বাধীন ভারতে ফিরে আসা। দুর্ভাগ্যবশত যা পূরণ হয়নি। ফলে তাঁর দেহাবশেষ স্বাধীন ভারতের মাটি স্পর্শ করুক, এটাই আমি চাই”।

পাশাপাশি তিনি আবেগমথিত হয়ে জানিয়েছেন, “আমার বাবা ছিলেন একজন নিষ্ঠাবান হিন্দু। ফলে সে দিকে লক্ষ্য রেখেই আমি চাই, তাঁর দেহাবশেষ গঙ্গায় বিসর্জন দেওয়া হোক”।

anita bose pfaff
অনিতা বসুপাফ

ভারতে নিযুক্ত প্রাক্তন জাপানি রাষ্ট্রদূত হিরাবায়াশি মন্তব্য করেছেন, টোকিওর রেনকোজি মন্দিরে নেতাজির ‘চিতাভস্ম’ সংরক্ষিত রয়েছে। যদিও এ ব্যাপারে ভারত সরকারের অনুমোদনের বিষয়টি বহুদিন আগেই সময় পার করেছে।

উল্লেখ্য, প্রতিবছরের মতোই গত ১৮ আগস্ট রেনকোজি মন্দিরে নেতাজির প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। তাইওয়ানে নেতাজির মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা এখনও কাটেনি। তবে নেতাজি-কন্যা মনে করেন, বিমান দুর্ঘটনাতেই নেতাজির মৃত্যু হয়। এ ব্যাপারে ডিএনএ টেস্ট নিয়েও সরকারি গড়িমসি বিতর্ক মেটানোরও আবেদন জানিয়েছেন অনিতা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন