padmavati

ওয়েবডেস্ক: এ বার আর শুধু নায়িকার নাক কেটে নেওয়া বা প্রাণনাশের হুমকিতেই থেমে থাকল না ‘পদ্মাবতী’ বিরোধ। এ রাজ্যে ছবির মুক্তিকে স্বাগত জানিয়ে হুমকির মুখে পড়লেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তাঁর অঙ্গহানির হুমকি এল হরিয়ানা থেকে। হরিয়ানার বিজেপি নেতা সুরজ পাল আমু, যিনি এর আগে দীপিকা পাড়ুকোনের মাথার দাম ধার্য করেছিলেন ১০ কোটি টাকা, হুমকি দিলেন মমতাকে। “জানতে পারলাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না কি নিজের রাজ্যে ছবি মুক্তির জন্য ডেকে পাঠিয়েছেন সঞ্জয় লীলা বনসলিকে। আমি শুধু এটুকুই বলতে চাই, এই রাজ্য রামচন্দ্রের ভাই লক্ষ্মণের কর্মভূমি। আর লক্ষ্মণ শূর্পনখার সঙ্গে কী করেছিলেন, তা কি আমার বিশদে বলার প্রয়োজন আছে?” এক সভায় মমতাকে এভাবে শূর্পনখার সঙ্গে তুলনা করে খোলাখুলি এ কথা বলেছেন আমু।

আমুর এই কুরুচিকর মন্তব্যের পরেও নীরব রয়েছে শাসকদল। যদিও পদ্মাবতী নিয়ে এই জলঘোলার প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন বেঙ্কাইয়া নাইডু। “গণতন্ত্রে হিংসাত্মক হুমকির কোনো স্থান নেই। যদি প্রতিবাদ জানাতেই হয়, তবে তা গণতন্ত্রকে সম্মান জানিয়েই করা উচিত। সেই প্রতিবাদ গ্রহণ করার জন্য তো কর্তাব্যক্তিরা রয়েছেনই সংশ্লিষ্ট বিভাগে”, এক সাহিত্যিক সম্মেলনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এ কথা বলেছেন নাইডু।

padmavati

অন্য দিকে ক্রমশ জটিল থেকে জটিলতর আকার নিচ্ছে জয়পুরের নাহারগড় কেল্লায় শুক্রবার উদ্ধার হওয়া ঝুলন্ত দেহর রহস্য। প্রথম থেকেই সন্দেহ ছিল – এ আত্মহত্যা নয়, হত্যা! সেই সন্দেহ ক্রমশ পোক্ত হচ্ছে জয়পুর পুলিশের। পাশাপাশি পুলিশের অনুমানের তালিকায় রয়েছে এক বিস্ফোরক তথ্য। খুব সম্ভবত পদ্মাবতী বিরোধকে কাজে লাগিয়ে চলছে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ঘটানোর উদ্যোগ।

জয়পুর পুলিশ জানিয়েছে, দুর্গের মধ্যে ছড়িয়ে থাকা অনেক পাথরেই কাঠকয়লা দিয়ে লেখা রয়েছে সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক বক্তব্য। কোথাও লেখা রয়েছে, “হর কাফির কা ইয়ে হাল হোগা!” অর্থাৎ সব বিধর্মীদেরই এক দশা হবে। কোথাও বা লেখা, যারা বিধর্মীকে হত্যা করবে, তারা আল্লার ভালোবাসা পাবে। এ-ও লেখা হয়েছে একটি পাথরে – পদ্মিনী মুসলমানের হাত থেকে বাঁচার জন্য জহর ব্রত পালন করেন যেমন, তেমনই যোধা বিয়ে করেছিলেন মুসলমান আকবরকে।

পুলিশ যা-ই বলুক, সন্দেহের তালিকা থেকে মুছছে না রাজপুত কর্নি সেনার নাম। ইতিমধ্যেই তৈরি হয়েছে বিতর্ক – ছবি মুক্তির বিরোধিতা করতে গিয়ে কোণঠাসা হয়ে এ বার কর্নি সেনারাই এই হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে সবার নজর ঘুরিয়ে দিতে চাইছে!  এই অভিযোগ সত্যি কিনা এখন তারই তদন্ত করছে পুলিশ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here