pm narendra modi

ওয়েবডেস্ক: কয়েক বছর আগে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের চাকরির সমস্যা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বলেছিলেন ‘চপ শিল্প’-এর কথা। তাঁর সেই মন্তব্য নিয়ে সমালোচনায় মুখর হয়েছিলেন বিরোধীরা। সরব হয়েছিলেন বিজেপি নেতাকর্মীরাও। এ বার তাঁদের নেতা, দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মুখেও শোনা গেল একই রকম কথা।

একটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মোদীকে প্রশ্ন করা হয়েছিল দেশের কর্মসংস্থান প্রসঙ্গে। বিরোধীদের দাবি বিজেপির আমলে দেশে যে আর্থিক বৃদ্ধি হয়েছে, তাতে চাকরির সুযোগ বাড়েনি। এই নিয়ে প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে মোদী বলেন, কর্মসংস্থান প্রসঙ্গে অপপ্রচার চালাচ্ছে বিরোধীরা। তাঁর বক্তব্য, দেশে যত কর্মসংস্থান হয়েছে বা হয়, তার খুব সামান্য অংশই সরকারি নথিতে জায়গা পায়। কর্মরত লক্ষ লক্ষ মানুষ সেই তালিকার বাইরে থেকে যান। তার মানে এই নয় যে, তাঁরা বেকার। এই প্রসঙ্গেই মোদী বলেন ‘পকোড়া শিল্পে’র কথা।

এদ্নের সাক্ষাৎকারে ওঠে আসন্ন বাজেটের কথাও। বিষয়টি অর্থ মন্ত্রকের এক্তিয়ারে পড়ে বলে জানালেও, মোদীর ইঙ্গিত- বাজেট জনমোহিনী হবে না। আগামী লোকসভা ভোটের আগে এটাই হতে চলেছে, মোদী সরকারের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট। তা সত্ত্বেও, তাঁর সরকার সংস্কারের পথে্ই হাঁটবে, এমনই সুর মোদীর গলায়। তিনি বলেন, এটা ভুল ধারণা যে সাধারণ মানুষ শুধু বিনা পয়সায় পণ্য ও পরিষেবা চান। বরং মোদীর মতে, তাঁরা সৎ প্রশাসন চান।

তবে কৃষকদের সমস্যা যে তাঁরা মেটাতে পারেননি, সে কথা মেনে নিয়েছেন মোদী। ‘কৃষকদের দুরবস্থার দায় কেন্দ্র ও রাজ্য দুই সরকারের ওপরই’- মোদীর মতে কৃষকদের সমস্যা নিয়ে সরকারের সম্পর্কে সমালোচনা ‘ন্যায্য’।

নোটবন্দিকে এদিনের সাক্ষাৎকারে ‘যুগান্তকারী সাফল্য’ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী। জিএসটি প্রসঙ্গে অবশ্য কিছুটা রক্ষণাত্মক তিনি। বলেছেন, জিএসটি-তে যে কোনো পরিবর্তন করার ব্যাপারে তাঁর সরকার প্রস্তুত।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন