সন্ত্রাসে অর্থ সাহায্যের অভিযোগে গিলানির জামাই-সহ সাত কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা ধৃত

0
192

শ্রীনগর: সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে অর্থ সাহায্য করার অভিযোগে সাত কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাকে গ্রেফতার করল জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)। গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছে প্রবীণ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা সঈদ আলি শাহ গিলানির জামাই আলতাফ আহমেদ শাহ-ও।

এনআইএ সূত্রে জানা গিয়েছে, আলতাফ ছাড়াও যে ছ’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাঁরা হলেন, নঈম খান, বিট্টা কারাটে, আয়াজ আকবর, টি সইফুল্লাহ, মেরাজ কেলওয়াল এবং সঈদ উল ইসলাম। এই সাত জনের মধ্যে কারাটেকে দিল্লি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি ছ’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে শ্রীনগর থেকে। তদন্তের জন্য সব নেতাকেই দিল্লিতে আনা হচ্ছে। হুরিয়ত কনফারেন্স, হিজবুল মুজাহিদিন এবং দুখতারন-এ-মিলাতের পাশাপাশি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে হফিজ সঈদের লস্কর-ই-তৈবার বিরুদ্ধেও।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে, পাকিস্তান থেকে আসা অর্থ কাজে লাগিয়ে কী ভাবে কাশ্মীরে জঙ্গি কার্যকলাপ মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে সে ব্যাপারে তদন্ত করার জন্যই এনআইএকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এই তদন্তের জন্য গত মে মাসে শ্রীনগর যায় তদন্তকারী সংস্থা। এর আগে জুলাইয়ে এই বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাদের সমন পাঠিয়ে দিল্লিতে ডেকেছিল এনআইএ, কিন্তু কেউ সেই সমনের জবাব দেয়নি। পরে কাশ্মীর পুলিশের তরফ থেকে জানা যায়, এই নেতারা পুলিশের নিরাপত্তামূলক হেফাজতে রয়েছেন বলে সমনের জবাব দিতে পারেননি। এর পরেই এই সাতজনকে গ্রেফতার করার সিদ্ধান্ত নেয় এনআইএ।

গত মাসে গ্রেফতার হওয়া নেতাদের বাড়িতে তল্লাশি চালায় এনআইএ। সেখান থেকে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন লস্কর এবং হিজবুলের লেটারহেড-সহ প্যাড, বই এবং নগদ দু’কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়। কাশ্মীর জঙ্গি কার্যকলাপে মদত দেওয়ার জন্য হাওয়ালা থেকে কী ভাবে এই নেতাদের কাছে টাকা পৌঁছে যাচ্ছে, সে ব্যাপারেও তদন্ত করবেন এনআইএর গোয়েন্দারা।

প্রসঙ্গত কাশ্মীরে জঙ্গি কার্যকলাপে পাকিস্তানের মদত দেওয়ার কথা একটি স্টিং অপারেশনে স্বীকার করে নিয়েছিলেন নঈম খান। যদিও এই স্টিং অপারেশনটিকে নকল বলে দাবি করেন নঈম, তাঁকে দল থেকে বহিষ্কার করে দেয় হুরিয়ত কনফারেন্স। নব্বইয়ের দশকে কাশ্মীরে জঙ্গি কার্যকলাপ শুরু হওয়ার পর এই প্রথম জঙ্গিদের অর্থ সাহায্যের ব্যাপারে তদন্ত শুরু করল কোনো কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

 

 

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here