করোনার সম্ভাব্য তৃতীয় ঢেউয়ে সত্যিই কি ঝুঁকির মুখোমুখি হতে পারে শিশুরা? জেনে নিন এইমসের ডিরেক্টর কী বলছেন

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) সম্ভাব্য তৃতীয় ঢেউ কি শিশুদের উপর আরও বেশি প্রভাব ফেলবে? স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ থেকে সাধারণ মানুষের আলোচনায় এখন উঠে আসছে এমনই প্রশ্ন। এ দিকে, দিল্লি এইমস (AIIMS)-এর ডিরেক্টর ডা. রণদীপ গুলেরিয়া (Dr Randeep Guleria) স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, আন্তর্জাতিক স্তরে অথবা ভারতে এমন কোনো তথ্য নেই, যা থেকে বলা যায়, তৃতীয় ঢেউয়ের প্রভাব শিশুদের উপর আরও বেশি করে পড়বে।

কী বলছেন এইমসের ডিরেক্টর?

মঙ্গলবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের আয়োজিত সংবাদিক বৈঠকে রণদীপ গুলেরিয়া বলেছেন, আন্তর্জাতিক স্তরে অথবা ভারতীয় কোনো পর্যবেক্ষণই শিশুদের বেশি করে আক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে কোনো তথ্য দিতে পারেনি। করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে যে সব শিশুরা সংক্রমিত হয়েছে, হয় তাদের উপর ভাইরাসের প্রভাব খুব কম পড়েছিল বা তারা আগে থেকেই কোনো রোগে ভুগছিল। তাঁর দাবি, আগামী দিনগুলিতে বাচ্চারা আরও বেশি করে করোনায় সংক্রমিত হবে বলে আমি মনে করি না।

Loading videos...

সিঙ্গাপুরে প্রভাব ফেলেছিল শিশুদের উপর

করোনার বি.১.১.৭ প্রজাতি আগে শিশুদেরও প্রভাবিত করেছিল বলে জানা গিয়েছে। বিশেষত সিঙ্গাপুরের মতো দেশে। তবে ডা. গুলেরিয়া দাবি করেছেন, সিঙ্গাপুরের কত শিশু এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে সে সম্পর্কে এখনও কোনো সরকারি তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে মূল প্রজাতির থেকে এই বি.১.১.৭ প্রজাতি প্রায় ৬০ শতাংশের বেশি মারাত্মক হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন?

করোনায় সংক্রমিত হয়ে শিশুদের সুস্থ হয়ে ওঠার হার থেকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অল্প বয়সিদের অনাক্রম্যতা অনেক ভালো। অন্যদিকে ভারতে শেষ ২৪ ঘণ্টায় মোট কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা নেমে এসেছে ৮৬ হাজারে। প্রথম ঢেউয়ের চূড়ায় গত বছর সেপ্টেম্বরে ভারতে দৈনিক সংক্রমণ ৯৭ হাজারে উঠেছিল। এ দিনের সংখ্যাটা কিন্তু তার থেকেও নীচে এসে গিয়েছে।

আরও পড়তে পারেন: ৬৩ দিন পর ভারতে দৈনিক সংক্রমণ এক লক্ষের নীচে, ১৩ লক্ষের ঘরে নেমে এল সক্রিয় রোগীর সংখ্যা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.