নয়াদিল্লি: আর্থিক মন্দার আবহেই আজ বাজেট পেশ করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। এ বারের বাজেট অনেকটাই ‘জনমোহিনী’ ছিল, সেটা বোঝা গেল কর ছাড়ের বহর দেখে।

বাজেটের সমস্ত আপডেট দেখে নিন নীচে।

Loading videos...

===============================================

***** বাজেট বক্তৃতা শেষ করলেন নির্মলা সীতারমন।

***** বিদ্যুৎ উৎপাদনে নিযুক্ত সংস্থাগুলিতে কর্পোরেট করে কিছুটা ছাড়।

***** কোম্পানিগুলিকে ডিভিডেন্ট ডিস্ট্রিবিউশন ট্যাক্স দিতে হবে না।

***** স্টার্ট-আপদের টার্নওভারের সীমা ২৫ থেকে বাড়িয়ে ১০০ কোটি।

***** পুরনো হারে কর দিলে মিলবে ছাড়। নতুন হারে দিলে কোনো ছাড় মিলবে না।

***** আয়কর ছাড়ের ঊর্ধ্বসীমা বাড়ল। ৫ লক্ষ টাকা আয় পর্যন্ত কোনো আয়কর নয়। ৫ লক্ষ থেকে সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা আয়- ১০ শতাংশ কর। সাড়ে ৭ থেকে ১০ লক্ষ টাকা আয় ১৫ শতাংশ কর। ১০ থেকে সাড়ে ১২ লক্ষ টাকা আয়- ২০ শতাংশ কর। সাড়ে ১২ থেকে ১৫ লক্ষ টাকা আয়- ২৫ শতাংশ কর। ১৫ লক্ষ বা তার বেশি আয়ে ৩০ শতাংশ কর।

***** আর্থিক বৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্র ১০ শতাংশ।

***** জীবন বিমা নিগমে শেয়ারের কিছুটা অংশ বিক্রির সিদ্ধান্ত সরকারের। আইডিবিআই ব্যাঙ্কে নিজেদের অংশীদারিত্ব বিক্রি করবে সরকার।

***** ব্যাঙ্কগুলোকে চাঙ্গা করতে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার কোটি টাকা।

***** এক লক্ষ্য থেকে বিমা বেড়ে হল ৫ লক্ষ টাকা। ব্যাঙ্ক গ্যারান্টি বেড়ে দাঁড়াল ৫ লক্ষ টাকা।

***** ব্যাঙ্ক বন্ধ হলে বিমার সুবিধা পাবেন গ্রাহকরা।

***** জম্মু-কাশ্মীরের জন্য ৩০ হাজার ৭৫৭ কোটি টাকা বরাদ্দ। লাদাখের জন্য বরাদ্দ ৫,৯৫৮ কোটি।

***** ২০২২-এ জি-২০ সম্মেলন আয়োজন করবে ভারত। তার জন্য বরাদ্দ ১০০ কোটি টাকা।

***** করদাতাদের চার্টার তৈরি হবে।

***** করদাতাকে বিব্রত করা যাবে না, এমনটা হলে সেটা ফৌজদারি অপরাধ: নির্মলা

***** পরিবেশকে স্বচ্ছ রাখতে চার হাজার ৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।

***** পরিবেশের স্বার্থে দূষণ ছড়ানো তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি বন্ধ হবে।

***** পর্যটনে বরাদ্দ ২৫০০ কোটি টাকা।

***** কলকাতায় ভারতীয় জাদুঘরের উন্নয়ন করা হবে। রাঁচিতে হবে আদিবাসী মিউজিয়াম। দেশের পাঁচটি জায়গায় প্রত্নতাত্ত্বিক সংগ্রহশালা- রাখিগড়ি (হরিয়ানা), হস্তিনাপুর (উত্তরপ্রদেশ), শিবসাগর (অসম), ধোলাবিরা (গুজরাত) আর আদিচানালুর (তামিলনাড়ু)।

***** জনজাতিদের জন্য বরাদ্দ ৫৩ হাজার কোটি টাকা। তপশিলি উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ ৫৮ হাজার কোটি টাকা।

***** প্রবীণ নাগরিক ও পিছিয়ে পড়া শ্রেণির মানুষদের জন্য ৯,৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।

***** নতুন বিনিয়োগকারীদের জন্য ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম।

***** মাধ্যমিক স্তরে ছাত্রী ৯২%, ছাত্র ৮১%। উচ্চমাধ্যমিকে ছাত্রী ৫৯%, ছাত্র ৫৬%। ‘বেটি বচাও বেটি পড়াও’-এর সাফল্যের কথা বললেন নির্মলা। মহিলাদের উন্নয়নে ২৮ হাজার ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।

***** ১ লক্ষ গ্রাম পঞ্চায়েতে ফাইবার অপটিক।

***** প্রতিটি বাড়িতে বিদ্যুতের প্রিপেড মিটার। তিন বছরের মধ্যে এই মিটার চালু হবে।

***** ২০২৪-এর মধ্যে ১০০টি নতুন বিমানবন্দর।

***** ২০০০ কিমি স্ট্র্যাটেজিক হাইওয়ে। পরিবহণ উন্নয়নের খাতে ১.৭ লক্ষ কোটি টাকা বরাদ্দ।

***** ৬০০০ কিলোমিটার জাতীয় সড়ক তৈরি হবে। ২০২৩-এর মধ্যে হবে দিল্লি-মুম্বই এক্সপ্রেসওয়ে।

***** ন্যশনাল টেক্সটাইল মিশন চালুর লক্ষ্যমাত্রা।

***** শিল্প এবং বাণিজ্যে উন্নয়নের জন্য ২৭ হাজার ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।

***** চালু হবে ইনভেস্টমেন্ট ক্লিয়ারান্স সেল। প্রতিটি জেলায় এক্সপার্ট হাব।

***** দেশি মোবাইল ফোন উৎপাদনে জোর।

***** নতুন ৫টি স্মার্ট সিটি হবে।

***** শিক্ষাক্ষেত্রে বরাদ্দ ৯৯ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। পিপিপি মডেলে তৈরি হবে আরও মেডিক্যাল কলেজ। অনলাইনে স্নাতকোত্তরের কোর্স চালু হবে।

***** শিক্ষায় প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ। স্যাটে বসতে পারবেন এশিয়া, আফ্রিকার পড়ুয়ারাও।

***** আসছে নতুন শিক্ষানীতি। চাকরি ভিত্তিক শিক্ষায় জোর। শিক্ষাঋণ বাড়ানোর জন্য এসবিআইকে অনুরোধ। স্কিল ইন্ডিয়া প্রকল্পে ৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ।

***** দেশের ১১২টি জেলায় আয়ুষ্মান ভারতের অন্তর্গত হাসপাতাল। পিপিপি মডেলে তৈরি হবে এই সব হাসপাতাল।

***** গ্রামোন্নয়নে বরাদ্দ ২ কোটি ৮৩ লক্ষ কোটি টাকা।

***** ২০২১-এর মধ্যে ১০৮ মেট্রিক টন দুধ উৎপাদন লক্ষ্য।

***** ২০০০ লক্ষ টন মাছ উৎপাদনের পরিকল্পনা।

***** গ্রামের যুবকদের জন্য সাগর মিত্র প্রকল্প। মৎস্য চাষে জোর দেওয়ার জন্যই এই প্রকল্প।

***** কৃষকদের ১৫ লক্ষ কোটি টাকা ঋণ।

***** জৈব সার ব্যবহারে জোর। ফসল রাখতে গুদান তৈরি। সবজি-ফসল নিয়ে যাওয়ার জন্য কিষাণ রেল। রফতানির উদ্দেশে চালু হবে কিষাণ উড়ান। রাসায়নিক সার ব্যবহার না করলে বিশেষ ছাড়: অর্থমন্ত্রী

***** খরাপ্রবণ ১০০টি জেলা চিহ্নিত। ২০ লক্ষ কৃষককে সৌরশক্তি চালিত পাম্প দেওয়া হবে, বললেন অর্থমন্ত্রী।

***** দরিদ্র সীমার ওপরে উঠে এসেছেন ২৭ কোটি মানুষ। মুদ্রাস্ফীতি নাগালের মধ্যে আনা গিয়েছে। ব্যাঙ্কের পরিস্থিতি এখন আগের থেকে অনেক ভালো: নির্মলা।

***** ভারতের উচ্চতর লক্ষ্যের জন্য গ্রামীণ, স্বাস্থ্য ও শিক্ষার উন্নয়ন দরকার। ২০২২ এর মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করতে চাইছি। এর জন্য রয়েছে কৃষি বিকাশ যোজনা। আনা হয়েছে প্রধানমন্ত্রী বিমা যোজনা। ‘একইসঙ্গে বিশেষ বেড়েছে পশু ও মৎস্য পালন: নির্মলা।

***** পেনশন- বিমায় সামাজিক সুরক্ষা জরুরি: নির্মলা

***** ভারতের বর্তমান অর্থনীতির মূল্য ২৪৮ বিলিয়ন ডলার।

***** আমাদের সময়ে গড় বৃদ্ধির হাড় ৭.৪ শতাংশ। আশির দশকে তা ছিল ৬ শতাংশ। আমরা অভূতপূর্ব বৃদ্ধি আর উন্নয়ন দেখতে পেয়েছি, দাবি অর্থমন্ত্রীর।

***** জিএসটির ফলে মানুষকে সার্বিক কর কম দিতে হচ্ছে। কর দেওয়ার পদ্ধতি সরল করেছি: নির্মলা

***** ৪০ কোটি করদাতার মধ্যে নতুন করদাতা ৬০ লক্ষ।

***** ২০১৪-১৯-এ কিছু লক্ষ্য ছিল। সেই লক্ষ্য পূরণে কিছু সংস্কার জরুরি ছিল: অর্থমন্ত্রী

***** ২০ শতাংশ দক্ষতা বৃষ্টি পেয়েছে: নির্মলা

***** টগবগে অর্থনীতি গড়ে তুলতে চাই: নির্মলা

***** ক্রয়ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য জনাদেশ দিয়েছে মানুষ: অর্থমন্ত্রী

***** শিল্পবাণিজ্যে জোর দিয়েছে সরকার, কর্মসংস্থানেও জোর দিয়েছে সরকার, দাবি অর্থমন্ত্রীর

***** বাজেট পেশ করছেন নির্মলা সীতারমন।

***** বাজেটে অনুমোদন দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা।

***** সংসদে এসে পৌঁছলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন আর অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর। বাজেটের নথিপত্রও সংসদে এসে পৌঁছেছে। এখন মন্ত্রিসভার বৈঠক চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.