মুখে অনেক বড়ো বড়ো কথা বললেও, মেয়েদের স্বাধীনতার ব্যাপারে ভারত যে এখনও পিছিয়ে সেটা প্রমাণিত হল মেঙ্গালুরুর একটি কলেজের জারি করা অদ্ভুতুড়ে সব ফতোয়ায়।

মেঙ্গালুরুর সেন্ট অ্যালয়সিয়াস প্রি ইউনিভার্সিটি কলেজের ফতোয়ায় এক দিকে যেমন ছাত্রীদের লিপস্টিক আর কাজল পরে আসতে নিষেধ করা হয়েছে অন্য দিকে ছেলেদের সাথে একসঙ্গে বসার ব্যাপারেও জারি হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। এর পাশাপাশি ছাত্রীদের ওপর আরও একগুচ্ছ বিধিনিষেধ জারি করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। সেগুলি হল –

• লিপস্টিক পরে কলেজে আসা যাবে না। শুধুমাত্র রঙহীন লিপগ্লস পরা যাবে
• ভারী মেক আপ করা যাবে না।
• ব্যাগে রাখা যাবে না কোনও প্রসাধনী দ্রব্য। ধরা পড়লে তা আর ফেরত দেওয়া হবে  না।
• চোখের মেকআপ করা যাবে না। গাঢ় কাজল পরেও আসা যাবে না।
• নেল পালিশ বা ট্যাটু-ও করে আসতে পারবেন না ছাত্রীরা।
• পুরো হাত নয়, শুধুমাত্র হাতের চেটোতেই মেহেন্দি করা যাবে। কোনও অনুষ্ঠান থাকলে আগে থেকে কলেজের অনুমতি নিয়ে মেহেন্দি করতে পারবে।
•  সকল পড়ুয়াকে কালো জুতোই পরতে হবে।
• চুল খোলা রাখা যাবে না, বেশি স্টাইল করে চুল কাটা যাবে না। চুলে রং করাও যাবে না।
• ঢিলেঢালা পোশাক পরতে হবে। জামার কলারের কাছের বোতাম ছাড়া বাদবাকি সব বোতাম আটকাতে হবে।
• ছেলেদের কাছাকাছি থাকা যাবে না। ছেলে মেয়ে পরস্পর কাউকে স্পর্শ করতে পারবে না।

• পার্কিং এলাকা, বইয়ের দোকান, বাস স্ট্যান্ড কোথাও ছেলে মেয়েরা একসঙ্গে থাকতে পারবে না।
• কলেজে খাওয়া যাবে না চিউয়িং গাম।

শুধুমাত্র এই ফতোয়া জারি করেই থেমে থাকেনি কলেজ কর্তৃপক্ষ। নিয়ম পালন না করলে শাস্তি দেওয়ার চারটি ধাপ করে রেখেছে তারা। প্রথমবার ধরা পড়লে জরিমানা দিতে হবে ৫০০ টাকা, দ্বিতীয়বার ধরা পড়লে টাকার অঙ্ক দ্বিগুণ হবে। তৃতীয় বারে গার্জেন কল। এরপর নিয়ম না মানলে সেই ছাত্রীকে সাসপেন্ড করে দেবে কলেজ।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই খবরটি ছড়িয়ে পড়তেই তীব্র নিন্দার মুখে পড়তে হয়েছে কলেজটিকে। তবে ফতোয়া জারি করার কথা অস্বীকার করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। এই ব্যাপারে সাইবার সেলে অভিযোগ করেছে তারা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here