mayawati and akhilesh yadav

ওয়েবডেস্ক : সাম্প্রতিক পুর নির্বাচনে ইভিএমে রিগিং-এর অভিযোগ তুলল উত্তরপ্রদেশের দুই প্রধান বিরোধী দল বহুজন সমাজ পার্টি (বিএসপি) এবং সমাজবাদী পার্টি (এসপি)। তাদের তরফে দাবি করা হয়েছে, এই নির্বাচনে যদি জনগণের মতামত ইভিএমের পরিবর্তে ব্যালটে নেওয়া হতো তাহলে বিজেপি এই বিপুল সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেত না।

”সততা এবং গণতন্ত্রের প্রতি বিজেপির যদি সত্যিই শ্রদ্ধা থাকে তা হলে আগামী লোকসভা নির্বাচনে ইভিএমের বদলে ব্যালট পেপারে ভোট করে দেখাক। আগামী ২০১৯-এ দেশের সাধারণ নির্বাচন। বিজেপি  বলে বেড়াচ্ছে দেশবাসী তাদের সঙ্গে রয়েছে, ব্যালটে ভোট নিয়ে সে কথা প্রমাণ করুক। কিন্তু না, ব্যালটে ভোট মানুষের মতামত নিলে দেখা যাবে ওরা ক্ষমতায় আসতে পারবেই না।” পুরভোটের ফলাফল ঘোষণার পরদিনই লখনউয়ে এ কথা জানান বিএসপি নেত্রী মায়াবতী।

মায়াবতীর অভিযোগের প্রতিধ্বনি শোনা গিয়েছে এসপি নেতা তথা উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের কথাতে। তাঁর দবি, ”বিজেপি বলছে, মোট ১৬ টি পুরপর্ষদের মধ্যে ওরা জিতেছে ১৪টিতে বাকি দু’টিতে বিএসপি জিতেলেও কংগ্রেস এবং এসপি উত্তরপ্রদেশ থেকে মুছে গিয়েছে। আমি হলফ করে বলত পারি ইভিএমে মতপ্রকাশে বিজেপি যতই ৪৬ শতাংশ ভোট কথা বলুক না কেন, ব্যালট পেপারে নির্বাচন হলে ওরা ১৫ শতাংশ ভোট পেত কি না সন্দেহ।”

যদিও বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, বিএসপি বা এসপি অযৌক্তিক দাবি করছে। কারণ ওই পুরসভাগুলিতে গত নির্বাচনেও চমকপ্রদ ফল করেছিল তাঁদের দল সেবার ২০১২ সালের নির্বাচনেও সেখানকার ১২টি পুরসভার মধ্যে ১০টিতে জিতে ছিল বিজেপি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here