নয়াদিল্লি: প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে মতপার্থক্য থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়, ‘রাইসেনা ডায়লগ’ উদ্বোধনে এসে এমন মন্তব্য করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ৬৫টি দেশ থেকে আসা প্রায় আড়াইশো প্রতিনিধি।

অনুষ্ঠানে চিনের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ভারত আর চিন দুই মহাশক্তিধর প্রতিবেশী দেশ। এই দুই দেশের মধ্যে মতপার্থক্য থাকাটা খুব অস্বাভাবিক কিছু নয়।” চিনের পাশাপাশি পাকিস্তানের উদ্দেশে কিছু ‘উপদেশ’ দেন মোদী। নরম সুরে পশ্চিম প্রতিবেশীর উদ্দেশে তিনি বলেন, “পাকিস্তান শান্তির পথ তৈরি করলে তবেই ভারত সেই পথে হাঁটতে পারবে।”

মোদী আরও বলেন, পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী ভারত, কিন্তু তার জন্য সন্ত্রাসের পথ তাদের ছাড়তে হবে। তাঁর কথায়, “পাকিস্তান সন্ত্রাসের পথ ত্যাগ করুক, তা হলে ভারত তাদের সঙ্গে আলোচনায় রাজি।”

শান্তি স্থাপনের জন্য আলোচনার গুরুত্বের কথা প্রসঙ্গে মোদী বলেন, “শান্তি, উন্নয়ন আর সুসম্পর্ক বজায় রাখতে গেলে আমাদের নিজেদের আরও সংবেদনশীল হতে হবে এবং নিজেদের প্রধান সমস্যাকে গুরুত্ব দিতে হবে।”

এর পাশাপাশি ২০১৪-এ ক্ষমতায় আসার পর মোদীর রাজত্বে ভারতে কী পরিবর্তন হয়েছে সে নিয়েও ব্যাখ্যা দেন তিনি। “২০১৪-এর পর এক নতুন অধ্যায় শুরু হয়েছে। পরিবর্তন এসেছে মানুষের ভাবনাচিন্তায়। এখন অনেক সাহসী সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন সাধারণ মানুষ”, বলেন মোদী।      

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here