টিকার ডোজের ব্যবধান নিয়েও রাজনীতি হচ্ছে, আক্ষেপ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

0
ডা. হর্ষ বর্ধন। ছবি: এএনআই-এর সৌজন্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজের মধ্যে ব্যবধান বাড়ানোর সিদ্ধান্তটি “স্বচ্ছ” এবং “বৈজ্ঞানিক তথ্যের ভিত্তিতে” নেওয়া হয়েছে বলে বুধবার দাবি করলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. হর্ষ বর্ধন। নতুন নিয়মানুযায়ী, কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিতে গেলে অন্তত ৮৪ দিন অপেক্ষা করতে হবে।

আগে দু’টি ডোজের ব্যবধান নির্ধারিত হয়েছিল ৬-৮ সপ্তাহ, পরে তা করা হয়েছে ১২-১৬ সপ্তাহ। কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, দু’টি ডোজের মধ্যে ব্যবধান বাড়ালে টিকা আরও বেশি কার্যকরী হবে। দাবি করা হয়েছে, পর্যাপ্ত বৈজ্ঞানিক গবেষণার পরেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

Loading videos...

এ দিন টুইটারে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী লেখেন, “কোভিশিল্ডের দু’টি ডোজের মধ্যে ব্যবধান বাড়ানোর সিদ্ধান্তটি বৈজ্ঞানিক তথ্যের ভিত্তিতে স্বচ্ছ পদ্ধতিতে নেওয়া হয়েছে। তথ্য মূল্যায়নের জন্য ভারতের একটি শক্তিশালী ব্যবস্থা রয়েছে। দুর্ভাগ্যজনক যে এ জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি নিয়েও রাজনীতি করা হচ্ছে”!

এ প্রসঙ্গে ন্যাশনাল টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজরি গ্রুপ অন ইমিউনাইজেশন (NTAGI)-এর চেয়ারম্যান ডা. এনকে অরোরার বক্তব্য উদ্ধৃত করা একটি সরকারি বিবৃতিও ওই টুইটের সঙ্গে জুড়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী। যেখানে অরোরা বলেছেন, কোভিশিল্ডের দু’টি ডোজের মধ্যে ব্যবধান বাড়ানোর পিছনে বিজ্ঞান রয়েছে।

অরোরা বলেছেন, কোভিশিল্ড এমন ভাবে তৈরি হয়েছে, যাতে এর দু’টি ডোজের ব্যবধান বেশি করলে মানুষের শরীরে অ্যান্টিবডির পরিমাণও বাড়বে। এই টিকা তৈরি হয়েছে ব্রিটেনের অক্সফোর্ডের ফরমুলায়। ইংল্যান্ডের জনস্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, দু’টি ডোজের ব্যবধান ১২ সপ্তাহ হলে এর কার্যকারিতা ৫৬ শতাংশ থেকে ৮৮ শতাংশে উন্নীত হয়।

আরও পড়তে পারেন: সংক্রমণ সামান্য বাড়লেও হার কমে ৩ শতাংশের কাছে, আরও বাড়ল সুস্থতার হার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.