rahul-gandhi

আগরতলা: “মোদী জি আতে হ্যাঁয়, ২-৩ ওয়াদে কর যাতে হ্যাঁয়। চুনাও কে বাদ ভুল যাতে হ্যাঁয়। জহাঁ ভি যাতে হ্যাঁয়, কুছ না কুছ গলত ওয়াদে করকে চলে যাতে হ্যাঁয়” (মোদী জি আসেন, ২-৩টে প্রতিশ্রুতি দিয়ে যান। ভোটের পরে ভুলে যান। যেখানেই যান, কিছু না কিছু ভুল প্রতিশ্রুতি দিয়ে চলে যান) – ত্রিপুরা বিধানসভা ভোটে প্রচারের শেষ দিনে এ ভাবেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। রাহুল কৈলাসহরের রামকৃষ্ণ কলেজের মাঠে জনসভা করেন। কংগ্রেসের তরফে জানানো হয়েছে, সংলগ্ন ১৭টি বিধানসভার কংগ্রেস প্রার্থীর সমর্থনে ওই প্রচারসভায় উনকোটি, ধলাই জেলা থেকেও কংগ্রেস সমর্থক-কর্মীরা যোগ দেন।

গত বৃহস্পতিবারই রাজ্যে দ্বিতীয় বার সভা করে গিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। স্বাভাবিক ভাবে শুক্রবার কংগ্রেস সভাপতির আগমন বেশ অর্থবহ। নরেন্দ্র মোদী দেশের পিছিয়ে পড়া রাজ্য হিসাবে ত্রিপুরার মানুষকে যে সমস্ত প্রতিশ্রুতি দিয়ে গিয়েছেন অথবা কংগ্রেসকে যে ভাবে তুলোধনা করেছেন তাতে সে সবের জবাব দেওয়ার যোগ্য সময় পেয়ে গেলেন রাহুল। ওই সভা থেকে মোদী দাবি করেছিলেন, কংগ্রেস সহযোগিতা করছে বলেই বামেরা ত্রিপুরায় টানা ২৫ বছর ক্ষমতা ধরে রেখেছে।

রামকৃষ্ণ কলেজের মাঠের এই সভায় যোগ দিতে রাহুল ১২টার মধ্যেই আগরতলা পৌঁছে যান। সভামঞ্চে ১৭ জন প্রার্থীকে জনতার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়ে বক্তব্য রাখেন তিনি।

কিন্তু কী বলবেন রাহুল, তা নিয়ে ঔৎসুক্য ছিল কংগ্রেস-কর্মী সমর্থকদের মনে। তাঁরা চেয়েছিলেন, সারা দেশ জুড়ে কংগ্রেসের প্রচারে রাহুল গান্ধী যে ভাবে মোদীর সমালোচনা করে আসছেন, এখানেও তা-ই করুন। মানুষকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট পাওয়া আর তার পর সেই মানুষের স্বার্থবিরোধী নীতি গ্রহণ করে তাদের বিপদে ফেলা, মোদীর এই কৌশলের বিরুদ্ধে রাহুল ত্রিপুরার মানুষের কাছে মুখ খুলুন।  এ প্রসঙ্গে এক কংগ্রেস নেতা বলেন, রাহুলের কাছে নীরব-নরেন্দ্র মোদীর জালিয়াতি সম্পর্কে আরও অনেক কিছুই জানতে চায় ত্রিপুরার মানুষ।

দলের কর্মী-সমর্থকদের আশা পূরণ করেন রাহুল।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন