bullock cart
প্রতীকী ছবি। পিক্সাবে থেকে

ওয়েবডেস্ক: উত্তরাখণ্ডের সাহাসপুরের চারবা গ্রামে একটি গোরুর গাড়ির মালিক রিয়াজ হাসানকে ১,০০০ টাকা জরিমানা করে পুলিশ। গত শনিবার রাতে বেআইনি পার্কিংয়ের অভিযোগে এই জরিমানা করার পরে পুলিশ নিজেদের ভুল বুঝতে পারে। এর পরই তাঁকে দেওয়া চালান ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

জানা গিয়েছে, নিজের খেতের পাশেই গোরুর গাড়িটি দাঁড় করিয়ে রেখেছিলেন রিয়াজ। টহল দিতে সেখানে পুলিশ আসে। তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হয়, সেটি কার গোরুর গাড়ি? উত্তরে রিয়াজ জানায় সেটি তাঁরই। এর পরই নতুন মোটর ভেহিক্যালস অ্যাক্টের নিয়মানুযায়ী বেআইনি পার্কিংয়ের অভিযোগে ১,০০০ টাকা জরিমানা করে রিয়াজের হাতে চালান তুলে দেওয়া হয়।

কিন্তু প্রতিবাদ করেন রিয়াজ। তিনি প্রশ্ন করেন, “মোটর ভেহিকেলস আইন কী ভাবে গোরুর গাড়িতে প্রযোজ্য হবে? নতুন আইনে কি পশুচালিত যানের উপরেও জরিমানা চালু করা হয়েছে”? একই সঙ্গে তিনি বলেন, “আমি তো নিজের জমির পাশেই গাড়িটি দাঁড় করিয়ে রেখেছি”! কিছুক্ষণের মধ্যেই টহলরত সাব-ইন্সপেক্টর পঙ্কজ কুমার নিজেদের ভুল বুঝতে পারেন। এর পরই তাঁকে দেওয়া চালান ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

সাহাসপুর থানার অফিসার-ইন-চার্জ পি ডি ভাট একটি দৈনিক পত্রিকার কাছে জানান, “বেআইনি খননের অভিযোগ পেয়েই পুলিশকর্মীরা এলাকায় টহল দিচ্ছিলেন। গ্রামবাসীদের অধিকাংশ কয়লা খননের পর সেখানে ভরাট করা বালি চুরিতে যুক্ত। পুলিশ ভেবেছিল, রিয়াজের গোরুর গাড়িটিও চুরির কাজে ব্যবহৃত”।

তিনি বলেন, “ঘটনাটি রাতের অন্ধকারে ঘটে। ফলে পুলিশকর্মীরা বুঝতে পারেননি রিয়াজকে যে চালান দেওয়া হয়েছে সেটা মোটর ভেহিকেলস অমান্য করার না কি অন্য অপরাধের জরিমানার। অন্ধকারে দু’টোই এক রকমের দেখতে। আসলে পুলিশ রিয়াজকে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৮১ ধারায় চালান দিতে চেয়েছিলেন”।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন