Connect with us

দেশ

ভোটে ভরাডুবি, কার্যকরী সমিতির বৈঠকে কেঁদে ফেললেন চিদম্বরম

p chidamram

নয়াদিল্লি: লোকসভা ভোটের ফলাফল পর্যালোচনায় শনিবার বৈঠকে বসে কংগ্রেসের কার্যকরী সমিতি (ওয়ার্কিং কমিটি)। বৈঠকে উপস্থিত দলের উচ্চ নেতৃত্বের সঙ্গেই উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পি চিদম্বরম। সূত্রের খবর, ভোট-বিপর্যয় প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে চোখে জল চলে আসে তাঁর।

দিল্লিতে আয়োজিত এ দিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সোনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধী, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, রাজ্যসভার দলনেতা গুলাম নবি আজাদ, মল্লিকার্জুন খাড়গে ও পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরেন্দ্র সিং-সহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। সূত্রের খবর, বৈঠকে দলের সর্বভারতীয় সভাপতিপদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করেন রাহুল গান্ধী। যদিও দলীয় নেতৃত্বের তরফে তা অস্বীকার করা হয়।

বৈঠক শেষে কংগ্রেস জানায়, “মানুষ যে রায় দিয়েছেন, তা আমরা মাথা পেতে মেনে নিয়েছি। কংগ্রেসকে যাঁরা ভোট দিয়েছেন, তাঁদের ধন্যবাদ জানাই। শোষিত-নিপীড়িত মানুষের পাশে আমরা সর্বদা রয়েছি। প্রতিকূল পরিস্থিতিতে রাহুলে মতো নেতাকেই প্রয়োজন। তিনিই সংগঠনের পুনর্গঠন করুন। তিনি আমাদের পাশেই রয়েছেন”।

প্রসঙ্গত, দেশ জুড়ে দলের নির্বাচনী বিপর্যয় সামাল দিতে কিছুটা সময় লাগবে বলেই মনে করছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। শারীরিক কারণে এ বার প্রার্থী হননি চিদম্বরম। তবে তাঁর ছেলে কার্তি এ বার প্রার্থী হয়েছিলেন এবং বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ীও হন বিজেপির বিরুদ্ধে।

দেশ

সিবিএসইর সিলেবাস থেকে বাদ ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’, ‘গণতান্ত্রিক অধিকার’, তীব্র বিতর্ক

CBSE

খবরঅনলাইন ডেস্ক: চলতি শিক্ষাবর্ষে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির সিলেবাস তিরিশ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দেওয়ার কথা বলেছিল সিবিএসই। সেই মতো পদক্ষেপ করতে গিয়ে তৈরি হল এক নতুন বিতর্ক।  

মঙ্গলবার দেখা গেল ‘গণতান্ত্রিক অধিকার’, ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’, ‘ভারতে খাদ্য নিরাপত্তা’, ‘যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো’ আর ‘নাগরিকত্ব’ সংক্রান্ত অধ্যায় সিলেবাস থেকে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

একাদশ শ্রেণির রাষ্ট্রবিজ্ঞান থেকে পুরোপুরি বাদ গিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো, নাগরিকত্ব, জাতীয়তাবাদ এবং ধর্মনিরপেক্ষতা। দ্বাদশ শ্রেণির রাষ্ট্রবিজ্ঞান থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে ‘সমসাময়িক বিশ্বে নিরাপত্তা’, ‘পরিবেশ এবং প্রাকৃতিক সম্পদ’ ও ‘ভারতের সামাজিক ও নয়া সামাজিক আন্দোলন।’

সিবিএসই-এর এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। এর পেছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে বলেই অভিমত অনেকের। অনেকেরই দাবি, বিজেপি আর সংঘ পরিবারকে ‘তুষ্ট’ করতেই বেছে বেছে এই সব অধ্যায় বাদ দেওয়া হয়েছে।

যদিও এর পেছনে রাজনৈতিক কোনো উদ্দেশ্য একেবারেই দেখছে না সিবিএসই। শুধুমাত্র ২০২১-এর বার্ষিক পরীক্ষার জন্যই এটা কার্যকারী হবে বলে জানানো হয়েছে বোর্ডের তরফে।

Continue Reading

দেশ

বেসরকারিকরণের বিরুদ্ধে সপ্তাহব্যাপী প্রতিবাদে নামছে আরএসএসের শ্রমিক সংগঠন

বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার সংস্কারের নামে বেসরকারিকরণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতেই এই কর্মসূচি।

BMS

ওয়েবডেস্ক: কেন্দ্রের বেসরকারিকরণ নীতি এবং শ্রম আইনের সংশোধনের বিরুদ্ধে সপ্তাহব্যাপী প্রতিবাদে শামিল হচ্ছে আরএসএসের (RSS) শ্রমিক সংগঠন ভারতীয় মজদুর সঙ্ঘ (BMS)।

সংগঠন জানিয়েছে, বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার সংস্কারের নামে বেসরকারিকরণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতেই এই কর্মসূচি। এই ইস্যুতে এর আগেও দেশব্যাপী প্রতিবাদে শামিল হয়েছিল সংগঠন।

জানানো হয়েছে, ২৪-৩০ জুলাই পর্যন্ত শুরু হবে দ্বিতীয় দফার আন্দোলন। প্রতিদিন সেক্টর ধরে ধরে বিক্ষোভ দেখানো হবে। সরকার বিতর্কিত প্রস্তাবগুলি প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত প্রতিবাদ অব্যাহত থাকবে।

বিএমএসের সাধারণ সম্পাদক ব্রিজেশ উপধ্যায় (Vrijesh Upadhaya) জানান, “কর্মীদের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলছে এমন সমস্ত সাম্প্রতিক উদ্যোগ প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাবে বিএমএস”।

পাঁচটি ইস্যুতে প্রতিবাদ

বিএমএসের জারি করা বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, শ্রমিক সংগঠন পাঁচটি বড়ো ইস্যুতে প্রতিবাদ করবে। এর মধ্যে রয়েছে অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মীদের সমস্যা, বিশেষত অভিবাসী শ্রমিকদের সমস্যা, মজুরি না দেওয়া, চাকরি ক্ষেত্রে বিশাল সংখ্যক কর্মীকে ছাঁটাই, শ্রম আইন সংশোধন এবং বিভিন্ন রাজ্যে কাজের সময় বাড়ানো এবং প্রতিরক্ষা ও রেল-সহ বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত ক্ষেত্রের বেসসরকারিকরণের সরকারি সিদ্ধান্ত।

বিএমএসের এই সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচির নাম দেওয়া হয়েছে ‘সরকার জাগো সপ্তাহ’। এই কর্মসূচির আওতায় সংগঠনের উচ্চ নেতৃত্ব তৃণমূল স্তরের কর্মীদের কাছে সরকারের বেসরকারিকরণের নীতির বিরুদ্ধে জোরালো সওয়াল করবেন। সংস্কারের নামে সরকারের এই প্রস্তাবগুলি কর্মীদের কী ভাবে প্রভাবিত করবে, সে বিষয়ে বিশদ ব্যাখ্যা করবেন নেতৃত্ব।

প্রতিবাদ শুরু গত বছরেই

রাষ্ট্রায়ত্ত তেল, বিমা এবং বিমান সংস্থার বেসরকারিকরণের সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গত বছরেই প্রতিবাদে শামিল হয় বিএমএস।

কলকাতায় এসে বিএমএস সাধারণ সম্পাদক বলেন, ধুঁকছে দেশের অর্থনীতি, একের পর রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বেসরকারিকরণ এবং বিলগ্নিকরণের মাধ্যমে ঘুরে দাঁড়ানোর মিথ্যে প্রয়াস চালাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। এ ভাবে এলআইসি-র মতো রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার বিলগ্নিকরণের মাধ্যমে দুর্বল অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে না বলে জোর গলায় দাবি করেন তিনি।

এলআইসির বিলগ্নিকরণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তাঁর কথায়, “এলআইসি এখন পরিষেবা দেয়, বিলগ্নিকরণের মাধ্যমে এই সংস্থাকে নিয়ে ব্যবসা করা হবে শেয়ার হোল্ডারদের স্বার্থে। এটা এক ধরনের পাগলামো”, তাঁর বিস্ফোরক মন্তব্যের ভিডিয়ো দেখুন এই লিঙ্কে ক্লিক করে: LIC বিলগ্নিকরণ: বিস্ফোরক মন্তব্য RSS-এর শ্রমিক শাখা BMS সাধারণ সম্পাদকের

Continue Reading

দেশ

মন্ত্রী করোনা আক্রান্ত! কোয়রান্টিনে গেলেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন

গতকাল প্রতিমন্ত্রী মিথিলেশ ঠাকুর কোভিড -১৯ আক্রান্ত হিসাবে শনাক্ত হয়েছেন। তাঁর সংস্পর্শে এসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী

Hemant Soren

ওয়েবডেস্ক: মন্ত্রিসভার এক সদস্যের করোনাভাইরাস (Coronavirus) পজিটিভ রিপোর্ট ধরা পড়ার পর রাঁচিতে নিজের বাসভবনেই কোয়রান্টিনে গেলেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন (Hemant Soren)।

বুধবার ঝাড়খণ্ড রাজ্য সরকারের একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন নিজেকে কোয়রান্টিনে রেখেছেন। এখন মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে প্রবেশ নিষিদ্ধ। গতকাল (মঙ্গলবার) প্রতিমন্ত্রী মিথিলেশ ঠাকুর কোভিড -১৯ (Covid-19) আক্রান্ত হিসাবে শনাক্ত হয়েছেন। তাঁর সংস্পর্শে এসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।”

ঘটনায় প্রকাশ, সম্প্রতি মিথিলেশ ঠাকুরের সংস্পর্শে এসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। পরে মিথিলেশ করোনা পজেটিভ হন। যে কারণে মুখ্যমন্ত্রী কোয়রান্টিনে যাওয়ার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের সমস্ত কর্মীকেই কোয়রান্টিনে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

সরকারি সূত্রে খবর, শীঘ্রই মুখ্যমন্ত্রীর নমুনা পরীক্ষা করা হবে। তাঁর আরও এক দলীয় বিধায়ক মথুরা মাহাত সম্প্রতি করোনায় আক্রান্ত হন। মুখ্যমন্ত্রী দু’জনেরই দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন।

মিথিলেশ এবং মথুরা দু’জনেই রাজ্য সরকারি রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এ ভরতি রয়েছেন।

ঝাড়খণ্ডে করোনা

এখনও পর্যন্ত ঝাড়খণ্ডে তিন হাজার জনের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে এখনও পর্যন্ত সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৮৯২, মৃত্যু হয়েছে ২২ জনের।

আরও দুই মুখ্যমন্ত্রী

এর আগে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এবং বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারকে আশঙ্কার সৃষ্টি হয়। কেজরিওয়ালের জ্বর হওয়ার পর তাঁর নমুনা পরীক্ষা করানো হয়। তবে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। অন্য দিকে একটি সরকারি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে এক করোনা আক্রান্তের পাশের আসনে বসার কারণে নীতিশ কুমারেও নমুনা পরীক্ষা করানো হয়। তাঁর রিপোর্টও নেগেটিভ আসে।

Continue Reading
Advertisement
ক্রিকেট28 mins ago

১১৬ দিন পর শুরু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, হাঁটু গেড়ে বসে জর্জ ফ্লয়েডকে স্মরণ ক্রিকেটারদের

কলকাতা57 mins ago

কলকাতায় লকডাউনের আওতায় পড়া এলাকাগুলির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশিত

provident fund
শিল্প-বাণিজ্য2 hours ago

কেন্দ্রীয় সরকার আগস্ট মাস পর্যন্ত কর্মীদের ইপিএফ বকেয়া জমা করবে, অনুমোদন মন্ত্রিসভায়

CBSE
দেশ2 hours ago

সিবিএসইর সিলেবাস থেকে বাদ ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’, ‘গণতান্ত্রিক অধিকার’, তীব্র বিতর্ক

রাজ্য2 hours ago

আগামী পাঁচ দিন উত্তরবঙ্গে মাত্রাতিরিক্ত বৃষ্টির আশঙ্কা

BMS
দেশ3 hours ago

বেসরকারিকরণের বিরুদ্ধে সপ্তাহব্যাপী প্রতিবাদে নামছে আরএসএসের শ্রমিক সংগঠন

Currency
রাজ্য3 hours ago

ডিএ মামলায় রাজ্য সরকারের আর্জি খারিজ স্যাটে

Hemant Soren
দেশ4 hours ago

মন্ত্রী করোনা আক্রান্ত! কোয়রান্টিনে গেলেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন

কেনাকাটা

কেনাকাটা1 day ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা2 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা3 days ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা1 week ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

নজরে