ভারতে করোনা ভ্যাকসিন ছাড়তে চেয়ে ফাইজারের আবেদন

0

নয়াদিল্লি: আমেরিকার বৃহত্তম ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা ফাইজার (Pfizer) নিজের তৈরি করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন (Coronavirus vaccine) এ দেশে ব্যবহারের জন্য অনুমোদন চাইল ভারতের ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়ার (DCGI) কাছে।

চলতি সপ্তাহেই ব্রিটেন এবং বাহরিনে টিকারকরণ শুরু করছে ফাইজার। ভারতে এখনও পর্যন্ত প্রায় ৯৬ লক্ষের বেশি মানুষ কোভিড-১৯ (Covid-19)-এ আক্রান্ত হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় ফাইজারের এই ছাড়পত্রের আবেদন যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ।

Loading videos...

সূত্রের খবর, ডিসিজিআই-এর কাছে গত ৪ ডিসেম্বর ফাইজারের তরফে আবেদন দাখিল করা হয়। ফাইজারের ভারতীয় শাখা (Pfizer India) ওই আবেদনে বলেছে, “নিউ ড্রাগস অ্যান্ড ক্লিনিকাল ট্রায়ালস রুলস, ২০১৯-এর অধীনে বিশেষ বিধি মেনে ভারতীয় নাগরিকদের উপর ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমতির পাশাপাশি দেশে বিক্রয় ও বণ্টনের জন্য ভ্যাকসিন আমদানি করা হোক”।

এর আগেই জানা গিয়েছে, মাইনাস ৭০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করতে হয় ফাইজারের তৈরি এই ভ্যাকসিনকে। কিন্তু এই তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করার জন্য পর্যাপ্ত কোল্ড স্টোরেজ ব্যবস্থা নেই এ দেশে। তবে সংস্থা স্বত:প্রণোদিত হয়ে ভারতের কাছে ভ্যাকসিন বাজারজাত করার ছাড়পত্র চাওয়ায় পরিস্থিতি অন্য দিকে মোড় নিল। তবে ভারতে তারা টিকাকরণ প্রক্রিয়া কী ভাবে পরিচালনা করবে, সে ব্যাপারে কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

ভারতে কোনো ভ্যাকসিনের ছাড়পত্র পাওয়ার জন্য ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানো বাধ্যতামূলক। কিন্তু ফাইজার অথবা তার কোনো ভারতীয় সহযোগী সংস্থা এ ধরনের পরীক্ষা চালানোর ব্যাপারে কোনো প্রস্তুতির কথা এর আগে জানায়নি। ফলে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে ফাইজারের আবেদন জমা পড়ার ঘটনায় অবাক হয়েছে অনেকেই।

গত সপ্তাহেই পৃথিবীর প্রথম দেশ হিসেবে ফাইজার-বায়োএনটেক (Pfizer-BioNTech)-কে কোভিড-১৯ (COVID-19) ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছিল ব্রিটেন। ২ ডিসেম্বর ঘোষণা করা হয়, ফাইজারের করোনা ভ্যাকসিন ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত। আগামী সপ্তাহে ব্রিটেনে প্রথম ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। ফাইজারকে চার কোটি ভ্যাকসিন তৈরির বরাত দেওয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহেই চলে আসতে পারে এক কোটি ডোজ। আপাতত আপৎকালীন ভ্যাকসিন বিলির অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়তে পারেন: টানা সাত দিন দেশে দৈনিক কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ হাজারের নীচে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন